অনলাইন ক্লাস সহজলভ্য করতে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে: শিক্ষামন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার সশরীরে শিক্ষার পাশাপাশি অনলাইন শিক্ষা বা মিশ্র শিক্ষাকে এগিয়ে নিতে নীতিমালা প্রণয়নের কাজ চলছে জানিয়েছে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেন, বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় এদেশের শিক্ষাক্রমে মৌলিক পরিবর্তন আনা প্রয়োজন।, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর শিক্ষার্থীদের চিরাচরিত শিক্ষাক্রমকে উন্নত বিশ্বের চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে আরো উন্নত করা প্রয়োজন, এক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) ভূমিকা রাখতে পারে।
বুধবার সকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী সিনেট ভবনে আয়োজিত ‘এশিয়া-প্যাসিফিক অ্যাডভান্সড নেটওয়ার্ক (এপ্যান)’-এর ৫৩তম সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। ‘বাংলাদেশ রিসার্চ অ্যান্ড এডুকেশন নেটওয়ার্ক (বিডিরেন)’-এর পাঁচ দিনব্যাপী এই সভার আয়োজন করে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার শিক্ষার উন্নয়নে বিশেষ করে উচ্চশিক্ষায় বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। শিক্ষার মান বৃদ্ধি এবং উন্নত মানের গবেষণা কার্যক্রমকে কাজে লাগাতে না পারলে কোনো সেক্টরেই আশানুরূপ ফল পাওয়া যাবে না। একারণে আমাদের শিক্ষার মান বৃদ্ধিতে সত্যিকারের ‘ইন্ডাস্ট্রিয়া অ্যাকাডেমিয়া’ গঠন করতে হবে। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে হবে। শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তিগত দিক দিয়ে আরও দক্ষ করে তুলতে হবে। সর্বোপরি, আমাদের ‘আউটকাম বেইজড এডুকেশন’র দিকে ঝুকতে হবে।
করোনাকালে শিক্ষার্থীরা অনলাইন শিক্ষায় বিভিন্ন ধরনের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়েছে বলে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, দুর্বল ইন্টারনেটের গতি, ডিভাইসের স্বল্পতা এবং উচ্চমূল্যের ইন্টারনেট খরচের কারণে শিক্ষার্থীরা অনলাইন ক্লাসে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়েছে। অধিকাংশ উন্নয়নশীল দেশেরও একই ধরনের সমস্যা মোকাবেলা করতে হচ্ছে। এটা সত্য যে, এর দ্রুত সমাধান নেই।
দীপু মনি বলেন, শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাস সহজলভ্য করতে সরকারি উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। রাষ্ট্রায়ত্ত্ব টেলি কমিউনিকেশন সেবা প্রতিষ্ঠান টেলিটকের সঙ্গে কথা বলে ডাটা খরচ কমিয়েছে। টেলিটকের মাধ্যমে বিডিরেনের প্ল্যাটফর্মে শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাস ফ্রি করা হয়েছে। অন্যান্য মোবাইল অপারেটরাও ত্রিশ শতাংশ কম খরচে ইন্টারনেট সেবা দিয়েছে। ইউজিসি শিক্ষার্থীদের ডিভাইস কেনার জন্য লোন দিয়েছে।

বেসরকারি উদ্যোক্তাদের গবেষণা কার্যক্রমে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে দীপু মনি বলেন, আমি আশা করব আপনারা অনলাইন শিক্ষাকে আরো বেশি গ্রহণযোগ্য ও অন্তর্ভূক্তিমূলক করতে গুরুত্বপর্ণ ভূমিকা রাখবেন। বর্তমানে পাবলিক-প্রাইভেট যৌথ সহযোগিতার কথা ভাবছি।
শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, উচ্চ শিক্ষায় নতুন জ্ঞান সৃষ্টির পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষ মানুষদের তত্ত্বাবধানে শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের উপর্যযুক্ত প্রশিক্ষণ প্রদান করতে হবে। এর জন্য প্রয়োজন সকলের মধ্যে নেটওয়ার্কিং। এর মাধ্যমে নতুন যুগের চাহিদা অনুযায়ী মানবসম্পদ গড়ে তোলা সম্ভব।
বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান ও বিডিরেন ট্রাস্টের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহর সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালযের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান, এপ্যানের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. জিলং ওয়াং। স্বাগত বক্তব্য দেন বিডিরেনের ভাইস চেয়ারম্যান ও ইউজিসি সদস্য অধ্যাপক ড. দিল আফরোজ বেগম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.