চাঁদপুরে অচিরেই চালু হবে ৫ বেডের আইসিইউ ইউনিট : চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক

চাঁদপুরে অচিরেই ৫ বেডের আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের কাজ শুরু হবে। এজন্যে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরের সাথে আলোচনা চলছে। তবে আইসিও সুবিধা চালু করতে পর্যাপ্ত জনবলের প্রয়োজন রয়েছে। এছাড়া রোটেশন ওয়াইজ ডাক্তার, নার্সদের প্রয়োজন আছে। চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শনকালে চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডাঃ হাসান শাহরিয়ার কবীর এসব কথা বলেন। ১৬ আগস্ট সোমবার দুপুরে তিনি চাঁদপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে সংশ্লিষ্টদের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত করেন। পরে আড়াইশ’ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি জেনারেল হাসপাতালের লিকুইড অক্সিজেন প্লান্ট, উন্নয়ন কাজ, জরুরী বিভাগসহ হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শন করেন।
এ সময় তিনি বলেন, চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসাসেবায় আমি সন্তুষ্ট। এখানকার কর্মরত ডাক্তার এবং নার্সরা রোগীদের নিয়মিত ভালো চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। তবে তাদের লোকবল সংকট এবং চিকিৎসা সেবার বিভিন্ন মেশিনপত্র না থাকাতে তারা চাহিদামত পরিপূর্ণ চিকিৎসাসেবা দিতে পারছেন না। পাশাপাশি এ হাসপাতালটিতে গত কয়েক বছর ধরে রেডিওলজিস্ট চিকিৎসক না থাকায় আল্ট্রাসনোগ্রাম বিভাগটিও বন্ধ রয়েছে। লোকবল এবং মেশিনপত্রসহ এত সংকটের মধ্য দিয়েও হাসপাতালের চিকিৎসক এবং নার্সরা অনেক ভালো কাজ করছেন।
চাঁদপুরে আইসিও স্থাপনের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, চাঁদপুর জেলার এ হাসপাতালটিতে যদি আমরা আইসিও সুবিধা দেই, তাহলে পর্যাপ্ত জনবলের প্রয়োজন রয়েছে। এছাড়া রোটেশন ওয়াইজ ডাক্তার, নার্সদের প্রয়োজন আছে। তিনি বলেন, চাঁদপুরে অচিরেই ৫ বেডের একটি আইসিও স্থায়ীভাবে স্থাপনের ব্যবস্থা করবো।
পরিদর্শনে হাসপাতালের অনেক সংকটের বিষয়ে অবগত হয়েছি। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই আমি তা উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত জানিয়ে অচিরেই তা সমাধানের চেষ্টা করবো।
তিনি আরো বলেন, চাঁদপুর মেডিকেল কলেজের কার্যক্রম বর্তমানে হাসপাতালের ৪র্থ তলায় চলছে। যার কারণে হাসপাতালে রোগীদের চিকিৎসা সেবার ক্ষেত্রে বেড এবং কক্ষের সংকট দেখা দিয়েছে। সেই মেডিকেল কলেজ স্থাপন করত ব্যাপক জমির প্রয়োজন রয়েছে। জমি নির্ধারিত হলেই আশা করি খুব সহসাই চাঁদপুর মেডিকেল কলেজ নিজস্ব ভবনে তার কার্যক্রম পরিচালিত হবে। পরির্দশন শেষে তিনি চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসকদের সাথে বৈঠক করেন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাক্তার হাবিব-উল-করিম, সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ সাখাওয়াত উল্ল্যাহ,স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ ও বিএম এ চাঁদপুর জেলা শাখার সভাপতি ডাক্তার মোঃ নুরুল হুদা, বিএমএ সাধারণ সম্পাদক ডাঃ মাহমুদুন্নবী মাসুম, চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও)ও করোনা ফোকাল পার্সন ডাক্তার সুজাউদ্দৌলা রুবেল, ডাঃ আসিবুল আহসান চৌধুরী, সিনিয়র কনসালটেন্ট (চর্ম) ডাঃ ফেরদৌস আহসান, সিনিয়র কনসালটেন্ট (শিশু) ডাঃ অলিউর রহমান, সদর উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সাজেদা পলিন, হাইমচর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডাঃ মোঃ ইছারুল্লাহ, চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের কনসালটেন্ট (এনেসথেসিয়া) আবু সাদত মোঃ সায়েম, কনসালটেন্ট (অর্থ সার্জারী) ডাঃ ফরিদ আহমেদ চৌধুরী, সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার মোঃ মিজানুর রহমান, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার পীযূষ সাহাসহ হাসপাতালের বিভিন্ন পর্যায়ের চিকিৎসকবৃন্দ।

স্টাফ রিপোর্টার,১৭ আগস্ট ২০২১;

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *