আজ পহেলা বৈশাখ

চাঁদপুর সময় রিপোর্ট আজ পহেলা বৈশাখ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ। শুভ নববর্ষ। পুরনো সব জীর্ণকে ভুলে নতুন দিন, নতুন বছরে নতুন স্বপ্ন বাঙালির চোখে। আঁধার কেটে যাক, আসুক আলো, হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে গিয়ে বৈশাখের উৎসবের আনন্দে মেতে উঠুক প্রতিটি প্রাণ।
বাংলা নববর্ষ এখন আমাদের প্রধান জাতীয় উৎসবও। প্রতিবছর এ উৎসব বহু মানুষের অংশগ্রহণে এখন প্রাণের উৎসবে পরিণত হয়েছে। পহেলা বৈশাখ ছাড়া এত বড় সর্বজনীন উৎসবের উপলক্ষ বাঙালির আর নেই। এই উৎসবের মধ্য দিয়ে বাঙালি তার আপন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের আলোকে জাতিসত্তার পরিচয়কে নতুন তাৎপর্যে উপলব্ধি করে গৌরববোধ করে। এই গৌরব ও চেতনাই বাঙালিকে প্রেরণা জোগায় আপন অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে। তবে এবছর পবিত্র রমজান মাসে এই দিবসটি উদযাপন হচ্ছে। এতেকরে রমজানের পবিত্রতার বিষয়টি মুখ্য হয়ে উঠবে।
নববর্ষে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম সমাজের জঞ্জাল সরাতে ঘোষণা করেছেন নতুনের মহত্তম আহ্বান ‘ঐ নতুনের কেতন ওড়েৃ. তোরা সব জয়ধ্বনি কর’। রেনেসাঁর কবি ফররুখ আহমদ বাংলা নববর্ষকে দাওয়াত করেন আরো প্রত্যয়মগ্ন হয়ে গভীর আকুলতায় ‘অগণ্য অসংখ্য বাধা ওড়ায়ে হয় প্রবল কণ্ঠে। তুলি পুরুষ হুংকার, হে বৈশাখ এসোৃ।’ পহেলা বৈশাখ, কেবল জ্যোতির্বিদ্যা নিরুপিত পৃথিবী আহ্নিক গতির ওপর নির্ভরশীল একটি দিন তা নয়। আমাদের জীবনে চেতনা এবং স্বকীয় সংস্কৃতির পরিচয়ও বটে।
পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বাংলা বর্ষবরণকে নির্বিঘ্ন করতে নেয়া হয়েছে ঢাকাসহ সারাদেশে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে আইনশৃংখলা বাহিনীর পক্ষ থেকে রাজধানীতে বিকেল ৫টার মধ্যেই বর্ষবরণের অনুষ্ঠান শেষ করার আহ্বান জানানো হয়েছে।
পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। সরকারি-বেসরকারি টেলিভিশন ও রেডিওগুলো এ উপলক্ষে প্রচার করবে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা। সংবাদপত্রগুলো প্রকাশ করবে ক্রোড়পত্র ও বিশেষ নিবন্ধ। এছাড়া চাঁদপুরের বিভিন্ন স্থানে পালিত হবে পহেলা বৈশাখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.