আরফাত রহমান কোকো সংসদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহীম জুয়েল

আরফাত রহমান কোকো সংসদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মনোনিত হয়েছেন চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব কাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জুয়েল। ৬ এপ্রিল বুধবার সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি আলহাজ্ব নাজিম উদ্দিন আলম ও সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জাননো হয়।

তৃণমূল পর্যায়ে সাবেক ছাত্রনেতা কাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জুয়েলের সামাজিক কর্মকাণ্ডে অনুপ্রাণিত হয়ে সংগঠনটি তাকে এ পদে মনোনিত করে।

জানা যায়, ওয়ান ইলেভেনে পরিক্ষিত সাবেক ছাত্রনেতা ইব্রাহীম জুয়েল চাঁদপুরে বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে নিয়োজিত রাখার পাশাপাশি একাধিকবার কারাবরণ করেন। চাঁদপুর জেলা বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠন ছাড়াও কেন্দ্রীয় বিএনপি কাছে তাঁর পরিচিতি ব্যাপক ও বিস্তীর্ণ।

এই ছাত্রনেতা দেশে সেনা সমর্থিত ১/১১ সরকারে সময়ে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সাথে টেলি কনফারেন্স করে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনেই তোলপাড় সৃষ্টি করে ছিলেন। ফলে ওই সময়ে এ ছাত্রনেতা দেশের সব গণমাধ্যমের কল্যাণে জাতীয়ভাবেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন। দেশের গণতান্ত্রিক সব আন্দোলনে তিনি সক্রিয় অংশগ্রহণ অব্যাহত রাখেন।

কাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জুয়েলের জীবন ও কর্ম সম্পর্কে জানা যায়, তিনি ছাত্রজীবন থেকেই চাঁদপুরের সামাজিক, রাজনৈতিক অঙ্গন ও গণমাধ্যমে তাঁর গুরুত্বপর্ণ ভূমিকা ছিলো। গরীব-দুঃখীদের লালন-পালনসহ সমাজসেবাকূলকডাউনে বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে রেখেছেন অগ্রণী ভূমিকা। বিশেষ করে করোনাকালিন সময়ে কঠিন পরিস্থিতিতে পৌরবাসীর পাশে স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছেন।

এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো মাস্কের সংকট মূহূর্তে পথচারী, শ্রমিক ও সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করেন। মসজিদগুলোতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ, লকডাউনে আটকে পড়া পৌর এলাকার সাধারণ শ্রমিক ও দিনমজুরদের জন্যে টানা লকডাউনে দুপুরের খাবারের ব্যবস্থা করেন।

এছাড়া পৌর এলাকায় কর্মহীন হয়ে পড়ে প্রায় সহস্রাধিক পরিবারকে নগদ অর্থ ও খাবার দিয়ে তাদের পাশে দাঁড়ান। সাহায্য গ্রহণকারীদের সামাজিক অবস্থা বিবেচনায় এর বেশিরভাগ অংশই তিনি প্রচারের বাইরে রেখেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.