একটা বেয়াদবকে সাইজ করে শুরু করলাম, সামনে আরও হবে: ওমর সানী

বাংলা চলচ্চিত্রের খল অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজলের ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে চিত্রনায়ক ওমর সানীকে পিস্তল দিয়ে গুলি করার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে জায়েদ খানের বিরুদ্ধে। গত শুক্রবার রাত ১০টার দিকে রাজধানীর একটি কনভেনশন সেন্টারে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছেন স্বয়ং ওমর সানী।

ঘটনার বিস্তারিত জানতে প্রথম আলোর প্রতিবেদক ওমর সানীর সঙ্গে যোগাযোগ করেন। মুঠোফোনে ঘটনার বর্ণনা দিয়ে ওমর সানী বলেন, ‘আমি জায়েদ খানকে চড় মেরেছি। কিন্তু কী কারণে মেরেছি, সেটাও তো জানতে হবে সবাইকে। আর চড় মারার পর আমাকে মারতে সে পিস্তল বের করবে! কত বড় সাহস!’
চড় মারার কারণ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘অনেক দিন ধরে জায়েদের বেয়াদবি মার্ক করছিলাম। বিয়েতে দেখার পর কাছে গেছি। এরপর কষে থাপ্পড় মেরেছি। থাপ্পড় খেয়ে সে পিস্তল বের করে। বলে, “গুলি করে দেব কিন্তু।”’

ঘটনাটি ঘটার সঙ্গে সঙ্গে উপস্থিত ডিপজলসহ আরও কয়েকজন এগিয়ে গিয়ে তাঁদের শান্ত করেন। এরপর ওমর সানী অনুষ্ঠান ত্যাগ করেন। আধা ঘণ্টা পর জায়েদ খানও বেরিয়ে যান। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী একজন জানান, দুজনই না খেয়ে অনুষ্ঠান থেকে বেরিয়ে যান। শনিবার রাতে প্রথম আলোতে খবরটি প্রকাশের পর থেকে চলচ্চিত্রপাড়ায় তুমুল আলোচনা চলছে বিষয়টি নিয়ে।

একটা বেয়াদবকে সাইজ করে শুরু করলাম, সামনে আরও হবে, ওমর সানী

ঘটনাটি নিয়ে রোববার সকালে ওমর সানী তাঁর ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘আমি ততক্ষণ পর্যন্ত নীরব থাকি, যতক্ষণ পর্যন্ত আমার আত্মসম্মানে আঘাত না লাগে।’

স্ট্যাটাসটি দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ঝড়ের বেগে প্রতিক্রিয়া আসতে থাকে। হাজার হাজার লাইক পড়ে। করা হয় প্রায় অসংখ্য মন্তব্যও।

জিয়া চৌধুরী নামের একজন মন্তব্য করেছেন, ‘অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠ ঢাকাই চলচ্চিত্রের নব্বইয়ের দশক মাতানো প্রিয় নায়ক সুপারস্টার ওমর সানী ভাইয়া।’ আরিফ খান জয় নামের আরেকজন লিখেছেন, ‘সঠিক সময়ে সুন্দর কাজ করছেন। অনেক অনেক ধন্যবাদ, আমার মনের মতো কাজটা করার জন্য।’

আরেকটি মন্তব্যে মাজনুর রহমান লিখেছেন, ‘সে যে–ই হোক, আমরা জানি, আপনি অন্যায়কে কখনো প্রশ্রয় দেন না।’
ফেসবুক পোস্ট প্রসঙ্গে ওমর সানীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘আমি স্ট্যাটাসে যা লিখেছি, দিয়েছি, সেটা মানি। আমি পেছনে কথা বলি না। অনেকেই আছেন, শত্রু-মিত্র দুই জায়গায় গিয়েই ‘ভাই, ‘ভাই’ করেন। এই কাজ করিনি। সোজাসাপটা মানুষ আমি।’
ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা প্রশ্রয় দেবেন না জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ‘আমি অত্যন্ত ঠান্ডা মাথার মানুষ। তাই বলে তো বেয়াদবিকে প্রশ্রয় দেব না, কখনোই না। এ ধরনের বেয়াদবিকে সাইজ করা শুরু করলাম, সামনে আরও হবে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *