কচুয়ায় অবৈধ ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন

কচুয়া উপজেলার ৪নং পালাখাল মডেল ইউনিয়নসহ একাধিক জায়গা থেকে অবৈধ ভাবে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের হিড়িক লেগে গেছে। ড্রেজার মালিক ও বালু ব্যবসায়ীদের কারণে হুমকির মুখে পড়েছে বিপুল সংখ্যক ফসলি জমি। উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে খাল ও বিলসহ কৃষি জমিতে অবৈধভাবে ড্রেজার মেশিন দিয়ে গভীর করে বালু ও মাটি উত্তোলন করায় আশপাশের কৃষি জমিগুলো ভেঙ্গে পড়ছে। এতে করে কৃষি জমি নিয়ে শঙ্কায় দিন কাটাচ্ছে অনেক কৃষক।

এছাড়াও দিন দিন ভূখন্ডের ভারসাম্য হুমকির মুখে রয়েছে। ড্রেজারের মাধ্যমে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ ও কৃষি জমি রক্ষায় প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন এলাকাবাসী।

বুধবার সকালে সরেজমিনে দেখা যায়,উপজেলার পালাখাল মডেল ইউনিয়নের এনায়েতপুর গ্রামের মাঈন উদ্দিনের দহুলিয়া-দোয়াটি মাঠে ১টি ও নাংলা-এনায়েতপুর মাঠে ১টি এবং পালাখাল গ্রামের সেলিম ও সফিবাদ গ্রামের ইয়াছিন সিকারীর আইনপুর-শংকরপুর মাঠে ২টি ও সেঙ্গুয়া-ফতেপুর মাঠে ২টি অবৈধ ড্রেজার মেশিন বসিয়ে খালের পাশে থাকা ইরি-বোরো জমির আইল ঘেঁষে বালু উত্তোলন করছে। এভাবে একাধিক অবৈধ ড্রেজার মেশিন চলছে উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায়।

এতে করে কৃষি জমি ও ভূখন্ডের ভারসাম্য হুমকির মুখে পড়েছে।নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন কৃষক জানান, এলাকাবাসী বেশ কয়েকবার এভাবে বালু উত্তোলনে বাঁধা দিলেও কোন কাজ হয় না। বরং তারা উল্টো কৃষি জমির মালিকদের ভয়ভীতি দেখিয়ে আসছে। তারা কৃষি জমি রক্ষায় সংশ্লিষ্টদের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

এ বিষয়ে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মাহমুদা কুলসুম মনি বলেন, উপজেলায় কেউ অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করলে তথ্য পাওয়া মাত্র তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হচ্ছে। অবৈধ ড্রেজারে বালু উত্তোলনের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

কচুয়া প্রতিনিধি

Leave a Reply

Your email address will not be published.