কচুয়ায় প্রেমিক যুগলের পলায়ন : বাবা-মা হাজতে

চাঁদপুরের কচুয়ায় প্রেমের টানে একে অপরের হাত ধরে পালানোর অভিযোগ পাওয়া গেছে এক প্রেমিক যুগলের বিরুদ্ধে। এর ফলে জেল খাটলেন ছেলের নিরীহ বাবা-মা। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি উপজেলার আকানিয়া গ্রামে ঘটেছে। এ ঘটনায় প্রেমিকা আনিকা আক্তারের মা নাছিমা বেগম বাদী হয়ে কচুয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। যার নং-২৮, তারখি:-২১.১.২০২২খ্রি.।
মামলার প্রেক্ষিতে পুলিশ আকানিয়া গ্রামের প্রেমিক মোজ্জাম্মেল হোসেনের বৃদ্ধ বাবা জয়নাল আবেদীন ও মা পারুল বেগমকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করে। ওই মামলায় গ্রেফতার হয়ে টানা ১৫দিন কারাবরণ করে জামিনে বের হন তারা।
নিরীহ যুবক মোজাম্মেল হোসেনের মা পারুল বেগম বলেন,আমার ছেলের সাথে আনিকা নামের ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক কিংবা যোগাযোগের বিষয়টি তা আমাদের জানা নেই। তারা একে অপরের হাত ধরে কোথাও চলে গেছে বলে লোকমুখে শুনেছি। পরবর্তীতে পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় গন্যমান্য লোকজনের কথা মতে আমরা ছেলে মেয়ে উভয়কে উদ্ধার করি। আনিকা আক্তারকে তার মা নাছিমা বেগম,মামা আল-আমিন ও চাচাতো ভাই আরিফের জিম্মায় দেই। কিন্ত পরবর্তীতে আনিকা আক্তার তার চাচাতো ভাই আরিফ ও মামা আল-আমিনের কাছ থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়। এই নিয়ে তার মা নাছিমা বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের বিরুদ্ধে উল্টো অহরন মামলা দিয়ে এবং স্থানীয় কিছু লোকজন দিয়ে প্রভাব খাটিয়ে নানান ভাবে হয়রানি করছেন। তারা (আনিকা-মোজাম্মেল) বর্তমানে কোথায় আছে এমন প্রশ্ন করলে পারুল বেগম জানান,তাদের অবস্থান জানলে তো আমাদের জেল খাটতে হতোনা। আমরা তাদের অবস্থান সম্পর্কে কিছুই জানিনা।
মেয়ের মা নাছিমা বেগমের হুমকি ধমকি ফলে আমার বৃদ্ধ স্বামী প্রায় মৃত্যু শয্যায় আছে। একদিকে ছেলের খোঁজ পাইনা আরেক দিকে হুমকি ধমকির ফলে দিশেহারা অবস্থায় রয়েছি। বিষয়টি দ্রুত সমাধান পেতে প্রশাসন ও এলাকাবাসীর সার্বিক সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি। স্থানীয় নব-নির্বাচিত ইউপি সদস্য মো.জাহাঙ্গীর আলম ঘটনা সত্যতা শিকার করে বলেন,ছেলে মেয়েকে পালানোর পর মেয়েকে উদ্ধার করে তার মামা ও মায়ের কাছে জিম্মায় দেয়া হয়। পরবর্তীতে ওই মেয়ে পুনরায় উধাও হয়ে যায় বলে শুনেছি।
এদিকে আনিকা আক্তারের একটি ভিডিও ফুটেজ এ প্রতিবেদকের কাছে এসেছে। এ ভিডিওতে আনিকা আক্তার দাবি করেন, তার মা ও মামা তাকে জোরপূর্বক অপ্রাপ্ত বয়সে বিয়ে দিতে চেয়েছে। ফলে আনিকা আক্তার তার প্রেমিক মোজাম্মেলকে নিয়ে স্বেচ্ছায়ে পালিয়ে ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। তবে তার বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে জানা না গেলেও সে তার স্বামী ও শ^শুর-শ^াশুড়ির বিরুদ্ধে মামলা করায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে ওই মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান ওই ভিডিও ফুটেজের মাধ্যমে। তবে এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে আনিকা আক্তারের মা নাছিমা বেগমের ব্যবহৃত মোবাইলে বারবার চেষ্টা করলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

কচুয়া প্রতিনিধি

Leave a Reply

Your email address will not be published.