এক সপ্তাহের মধ্যেই করোনা টিকা পাবে স্কুল শিক্ষার্থীরা: শিক্ষামন্ত্রী

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, করোনা মহামারির মধ্যে এ বছরের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হচ্ছে আগামী ১৪ নভেম্বর। করোনা আক্রান্ত কোনো শিক্ষার্থী চাইলে হাসপাতাল থেকে পরীক্ষা দিতে পারবে।

আগামী ১৪ নভেম্বর থেকে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষা শুরু হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। এবারের পরীক্ষায় ৯টি সাধারণ বোর্ডে মোট ২২ লাখ ২৭ হাজার ১১৩ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে।
এক সপ্তাহের মধ্যেই করোনা টিকা পাবে স্কুল শিক্ষার্থীরা।

স্কুল শিক্ষার্থীদের মধ্যে করোনাভাইরাসের টিকা কার্যক্রম এক সপ্তাহের মধ্যেই শুরু হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।
বুধবার (২৭ অক্টোবর) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডা. মিল্টন হলে তৃতীয় গবেষণা দিবস উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, স্কুলে টিকা কার্যক্রম খুব শিগগির শুরু হবে। এখন রেজিস্ট্রেশনের কাজ চলমান আছে। এ কাজের আরেকটু অগ্রগতি হলে এক সপ্তাহের মধ্যে আমরা টিকা দেওয়া শুরু করতে পারব।

গতকাল বুধবার দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ২০২১ সালের এসএসসি, দাখিল, এসএসসি (ভোকেশনাল) ও দাখিল (ভোকেশনাল) পরীক্ষার সার্বিক বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি জানান, এবার ২৯ হাজার ৩৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশ নেবে। তার মধ্যে ৯টি সাধারণ বোর্ডে এসএসসি পরীক্ষার্থীর সংখ্যা হলো ১৮ লাখ ৯৯৮ জন। তিন লাখ এক হাজার ৮৮৭ জন দাখিল পরীক্ষায় অংশ নেবে। আর এক লাখ ২৪ হাজার ২২৮ জন কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এসএসসি ভোকেশনাল পরীক্ষা দেবে। গত বছরের তুলনায় এবার পরীক্ষার্থী বেড়েছে এক লাখ ৭৯ হাজার ৩৩৪ জন, প্রতিষ্ঠান বেড়েছে ১৫১টি, কেন্দ্র বেড়েছে ১৬৭টি।

এবারের পরীক্ষায় বিদেশ থেকে ৯টি কেন্দ্রে ৪২৯ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষার অংশগ্রহণ করবে বলেও জানান শিক্ষামন্ত্রী। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে কেন্দ্রগুলো হলো- জেদ্দার বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, রিয়াদের বাংলাদেশ অ্যাম্বাসি স্কুল, ত্রিপোলীর বাংলাদেশ কমিউনিটির স্কুল, কাতারের দোহায় বাংলাদেশ মাশহুর উল হক মেমোরিয়াল হাই স্কুল, আবুধাবির শেখ খলিফা বিন জায়েদ বাংলাদেশ ইসলামিয়া স্কুল, বাহরাইনের বাংলাদেশ স্কুল, আরব আমিরাতের বাংলাদেশ ইসলামিয়া স্কুল, ওমানের বাংলাদেশ স্কুল ও গ্রিসের এথেন্সের একটি স্কুল।

এর মধ্যে জেদ্দা কেন্দ্রে ৯৮ জন, রিয়াদে ৫৩ জন, ত্রিপোলীতে তিনজন, দোহায় ৮০ জন, আবুধাবিতে ৪৩ জন, দুবাইয়ে ৪৬ জন, বাহরাইনে ৭১ জন, ওমানের সাহামে ৩৪ জন ও গ্রিসের এথেন্সে একজন পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘অবশ্যই পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষার কক্ষে আসন গ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষার সময় হবে দেড় ঘণ্টা। শুধুমাত্র পরীক্ষা কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ফিচার ফোন (স্মার্টফোন ছাড়া) ব্যবহার করতে পারবেন। প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্রশ্নপত্র কেন্দ্রে পাঠানো হবে এবং পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট আগে এসএমএস এর মাধ্যমে সংশ্লিষ্টদের কাছে প্রশ্নপত্রের সেট কোড জানিয়ে দেওয়া হবে।’

বৈশ্বিক মহামারি করোনার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবারের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরীক্ষা শেষের ৩০ দিনের মধ্যে ফল প্রকাশিত হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এ সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন, কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আমিনুল ইসলাম, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুক, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদসহ মন্ত্রণালয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারা।

স্টাফ রিপোর্টার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *