গাজীপুরে চাল বিতরণকালে হামলায় আহত ১৫

এস আর শাহ আলম চাঁদপুর জেলা হাইমচর উপজেলার ১নং গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদ জেলেদের মাঝে চাল বিতরণকালে পরিষদে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের হামলায় অন্তত ১৫জন আহত হয়েছে। সেই হামলার ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান বাদী হয়ে হাইমচর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
ঘটনার বিবরনে জানা যায়, শুক্রবার সকাল ৯ টার সময় জেলেদের চাল বিতরণ চলছে। এ সময় দক্ষিণ আলগী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের অটো চালক মোঃ হাসেম পরিষদের সামনে গিয়ে রাস্তার উপরে তার অটো রেখে যানজট সৃষ্টি করে। সে সময় ১নং গাজীপুর ইউনিয়ন ৬নং ওয়ার্ডের মৃত নুরুসলাম পাটোয়ারীর ছেলে মোঃ আমিন জেলেদের নিয়ে অটোরিক্সা চালিয়ে পরিষদের সামনে আসলে রাস্তার উপরে থাকা অটোচালক হাসেম আমিনকে অটো থেকে টেনে হেরচে নামিয়ে মারধর করে। তাৎক্ষণিক আবু তাহের গাজি উভয়কে ছাড়িয়ে দেয়। তখন হাসেম আবু তাহেরের সাথে তর্ক-বিতর্ক করে তাকে পরে দেখে নেবার হুমকি দিয়ে চলে যায়। এদিকে চেয়ারম্যান মোঃ হাবিবুর রহমান গাজীর উপস্থিতিতে মেম্বার দেলোয়ার হোসেন, মেম্বার মোঃ শাহআলম, মেম্বার মোঃ আব্দুল হাই, মেম্বার হাবিবুর রহমান ঢ়াড়ি ও মহিলা মেম্বার ফাতেমা বেগমের স্বামি মোঃ কালাম খাঁসহ আরো অনেকে জেলেদের মাঝে ৮০ কেজি করে চাল বিতরণ করা শুরু করেন। ঠিক ১২ টার সময় বহিরাগত উত্তর আলগী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ নুরু মাঝি পিতা মৃত জলিল মাঝি সহ দক্ষিণ আলগীর মাঝি বাড়ির কয়েকজন ইউনিয়ন পরিষদে দেশীয় অস্ত্র ও লাঠি ছোটা নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায় বলে চেয়ারম্যান জানান, হামলার সময় চাউলের গোডাউনে লুট করে নিয়ে যাওয়ার সময় বাঁধা দেওয়ার সময় সাংবাদিকসহ ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুুলিশ আহত হয়। আহতদের মধ্যে মেম্বার মোঃ শাহআলম, আব্দুল হাই,কালাম খাঁ মোঃ রুবেল, চেয়ারম্যান এর ছেলে মোঃ আবুল বাসার, মোঃ ফারুক গাজী মোঃ আবু কালাম গাজী, মোঃ আবু তাহের গাজী, মোঃ নেছার গাজী, গ্রাম পুলিশ শাহজাহান সাজু, গ্রাম পুলিশ মোঃ দুলাল ঢ়াড়ি, বয়স্ক মহিলা শাফিয়া বেগম এর স্বামি মৃত দাদন সিকদারসহ দুইজন সাংবাদিক হামলার সময় গুরুতর আহত হন। শাফিয়া বেগম তার মাথায় কয়েকটি সেলাই দেওয়া হয়েছে, এছারা গ্রাম পুলিশ দুইজনই আহতের হাইমচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করে চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি ফিরে এলেও গুরতর অবস্থা দেখে নারি শাফিয়া ও গ্রাম পুলিশ শাহজাহান ও দুলালকে হাইমচর উপজেলা ডাক্তার চাঁদপুর সদর জেনারেল সরকারী হাসপাতালে প্রেরণ করেন বলে জানা যায়।
এদিকে চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান গাজী বলেন, হামলার সময় পরিষদে ভাংচুর করে গোডাউন থেকে চাল লুট করার সময় আমাদের লোকজন ২নং আলগী উত্তর ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের উত্তর আলগী গ্রামের মোঃ নজরুল ইসলাম মাঝি নামে একজনকে আটক করে। আর তাকে আটক করার পরেই শাহজাহান পেদার বাড়ি থেকে আরো ১০/১২ জন সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের পরিষদের দিকে আবার এগিয়ে আসলে আমরা আহত অবস্থায় পরিষদ ও জেলেদের জীবন বাঁচাতে বাঁশ হাতে নিয়ে তাদের ধাওয়া করি। আমাদের ধাওয়া খেয়ে মাঝি বাড়ির লোকজন পেদা বাড়ির দিকে ডুকে পরে খবর পেয়ে হাইমচর থানার এস.আই প্রান কৃষ্ণসহ সঙ্গীয় ফোর্স এসে সন্ত্রাসী হামলা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন, সে সময় পেদা বাড়ির সামনে এবং ভিতরে প্রায় ১৫/২০ জন মানুষের জটলা দেখে পুলিশ তাদের ধাওয়া করলে পুলিশের কাজে বাধা প্রধান সহ খারাপ আচরণ করেন শাহজাহান পেদা, যাহা নিশ্চিত করেন পুলিশ, পরে ভাংচুরের আলামত সরজমিন পুলিশ দেখেন এবং আটক ব্যক্তি নজরুলকে হাইমচর থানা পুলিশের হাতে তুলেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ হাবিবুর রহমান গাজী।
স্থানীয় লোকজন জানায় গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদে জেলেদের মাঝে চাল বিতরণের হাসিম সরদারের অটো রাখা নিয়ে কথায় কাটাকাটি হয়। জেলেদের চাল নিয়ে নয়, তাছাড়া হাসেম কোন জেলে না এবং এই ইউনিয়নের ভোটার কিংবা বাসিন্দাও নয়, আমরা মনে করি এটা চেয়ারম্যানের সম্মান নষ্ট করতে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আজ হামলা করেছে। আর আহত গ্রাম পুলিশ মোঃ দুলাল রাড়ী জানান, আমাদের পরিষদের জেলেদের মাঝে চাল বিতরণ করতেছিলাম। হঠাৎ করে ১০/১২জন লোক হাতে লাঠিসোটা নিয়ে আমাদেরকে মারধোর করে চাউল লুট করার সময় জেলেরা তাদের ধাওয়া করে।
অপর দিকে মেম্বার হাবিবুর রহমান ঢ়াড়ি বলেন, তারা দক্ষিণ আলগীর মাঝি বাড়ির লোক এবং উত্তর আলগীর, তারা শাহজাহান পেদার বাড়ির ভিতরে অস্ত্র নিয়ে প্রস্তুত ছিলো এবং ওই বাড়ি থেকে তারা বের হয়ে আমাদের উপর হামলা করে, তাহলেতো বোঝা যায়, এটা পরিকল্পিত হামলা করেছে।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ হাবিবুর রহমান গাজী বলেন, আমার পরিষদের জেলেদের মাঝে চাল বিতরণ করতেছিলাম। হঠাৎ করে একদল সন্ত্রাসী বাহিনীর পরিষদের ঢুকে আমার লোকজনের উপর হামলা চালিয়ে আমার গোডাউনে চাল লুট করে নিয়ে যায়। এতে আমার ইউপি সদস্যসহ গ্রাম পুলিশ, জেলেদের চাল মাপার লোক ও আমার পরিবারের বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। আমি প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করছি যারা আমার পরিষদে ঢুকে হামলা ও লুটপাটের ন্যায় ন্যাক্কারজনজ কাজে তদন্ত করে আইনের আওতায় এনে বিচার দাবী করছি।
আমি এই হামলাকারীদের ৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ১০/১২ জন রেখে শনিবার হাইমচর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি। একই সাথে নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছি। এদিকে হামলার সময় ধাওয়া খেয়ে পালাতে গিযে মাঝি বাড়ির দুইজন আহত হবার খবর পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে হাইমচর অফিসার ইনচার্জ মোঃ মাহবুবুর রহমান মোল্লা জানান, সংবাদ পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে নিয়ন্ত্রণ করি এবং উভয়পক্ষকে শান্ত থাকার জন্য বলা হয়েছে এবং আটক কৃত নজরুল কে থানায় নিয়ে আসি চেয়ারম্যান মামলা লিপিবদ্ধ করেছেন। আর শনিবার আটককৃত নজরুলকে ওই মামলায় চাঁদপুর আদালতে প্রেরণ করি।
এদিকে মাঝি বাড়ির লোকজন আলগী বাজার অবস্থান করে মারামারি করার পায়তারা করছেন বলে সুত্রে জানা যায়, একই সাথে মাঝিরা নানাহ হুমকি প্রধান করছেন বলে চেয়ারম্যান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.