গুলি করে বিএনপিকে দমানো যাবে না: অ্যাড. সলিম উল্লাহ সেলিম

মুহাম্মদ বাদশা ভূঁইয়া

জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, জাতীয়তাবাদী যুবদল কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম নয়ন সহ গ্রেফতারকৃত সকল বন্দীদের নিঃশর্ত মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, ৭ ডিসেম্বর গুলি করে হত্যা, নির্যাতন, পুলিশ কর্তৃক বিএনপি কার্যালয় জবর দখল ও ভাংচুর করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে চাঁদপুর জেলা বিএনপি।

মঙ্গলবারবিকাল সাড়ে তিনটায় চাঁদপুর জেলা বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে বিএনপি ও অংঙ্গ সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দদের অংশগ্রহণ করেন।
জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. সলিম উল্লাহ সেলিম এর সভাপতিত্বে ও জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মুনির চৌধুরীর পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন
জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মাহবুব আনোয়ার বাবলু, সেলিমুস সালাম, পৌর বিএনপির সভাপতি আক্তার হোসেন মাঝি, সদর থানা বিএনপির সভাপতি শাহজালাল মিশন।
এ সময় চাঁদপুর জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন খান বাবুল, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. হারুনুর রশিদ, জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম সম্পাদক জহির উদ্দিন বাবর,
সদর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. জাহাঙ্গীর খান, সহ-সভাপতি আফজাল হোসেন, জেলা যুবদলের সভাপতি মানিকুর রহমান মানিক, সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. নূরুল আমিন খান আকাশ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক হযরত আলী ঢালী, সদস্য সচিব কাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জুয়েল, জেলা কৃষকদলের সভাপতি এনায়েত উল্লাহ খোকন, সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, মৎস্যজীবি সভাপতি মোস্তফা কামাল, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান, জেলা ওলামাদল সভাপতি জসিম উদ্দিন, জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ফয়সাল গাজী বাহার, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ইমাম হোসেন গাজী, সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান গাজীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক তার বক্তব্যে বলেন, ঢাকার সমাবেশে সরকার ভয় পেয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে আটক করেছে ও অফিস ভাংচুর করেছে। এ প্রতিবাদ মনে হচ্ছে সরকারের বিরুদ্ধে নয় পুলিশের বিরুদ্ধে। পুলিশের কি উদ্দেশ্য তারা বিএনপি অফিসে বোমা রাখে। সরকার ও পুলিশ কি করেছে তা দেশের জনগন ও সারা বিশ্বের মানুষ দেখেছে। শেখ হাসিনার আত্মীয়-স্বজন হাজার হাজার লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা বিদেশে পাঁচার করছে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি আপনারা বাঁধা দিচ্ছেন। গুলি করে তাজা প্রাণ কেড়ে নিচ্ছেন। কোন মামলা, গুলি রাজপথ থেকে শহীদ জিয়ার সৈনিকদের হটাতে পারবে না। ভোট চোর সরকার আর আমাদের কথা শুনবেনা। আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি সরকার করতে দেবে না। মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার ও গুলি করে বিএনপির কর্মীদের আন্দোলন থেকে সরানো যাবে না। এ সরকারকে হরতাল ও অবরোধসহ কঠোর আন্দোলনের ঢাকার সমাবেশে সরকার ভয় পেয়ে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে আটক করেছে। এ প্রতিবাদ মনে হচ্ছে সরকারের বিরুদ্ধে নয় পুলিশের বিরুদ্ধে। গত ৮ তারিখ আমাদের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ বাঁধা ও লাঠিচার্জ এবং মিথ্যা মামলা দিয়েছে। আমরা তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব, কোন বাঁধা আমাদের আটকিয়ে রাখতে পারবে না।  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *