চাঁদপুরে গাছে গাছে আমের মুকুল

চাঁদপুর সময় রিপোর্ট শীত চলে যাচ্ছে শুরু হয়েছে বসন্তের আগমনী বার্তা। এরই মধ্যে চাঁদপুরের সর্বত্র এখন গাছে গাছে আমের মুকুল শোভা পাচ্ছে। চলতি মওসুমে গাছে গাছে আমের মুকুলের ছড়াছড়ি থাকলেও ঘন কুয়াশার কারণে তার অধিকাংশই ঝড়ে যাবে বলে মনে করছেন অনেকে। অত্র অঞ্চলে বানিজ্যিকভাবে আমচাষের নজির না থাকলেও গ্রামের অনেক বাড়ীতে আমের বাগান রয়েছে। ঐসব বাগানের আম বাজারে বিক্রি অনেকে অনেকেই আর্থিকভাবে লাভবান হন। কিন্তু আমের ফলন কম হলে সাধারণ মানুষ অনেক ক্ষতির মুখে পড়েন।
চাঁদপুর সদর উপজেলা, হাইমচর, ফরিদগঞ্জ, মতলব উত্তর ও দক্ষিণ সহ প্রায় সব উপজেলাতেই এবছর আমের মুকুল এসেছে অনেকে। আমাদের উপজেলা প্রতিনিধিরা জানান এবছর প্রায় সব গাছেই আমের মুকুল এসেছে। তবে সবাই শঙ্কিত এসব মুকুলের স্থায়িত্ব নিয়ে। তবে গাছে গাছে আমের মুকুলে চারিদিক ভরে গেছে।
এরই মধ্যে বসন্তের আবাস। গাছের ডালে হিমেল হাওয়ায় দুলছে আমের মুকুল। চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার নায়েরগাঁও উত্তর, নায়েরগাঁও দক্ষিণ, উপাদী উত্তর, উপাদী দক্ষিণ, নারায়ণপুর, খাদেরগাঁও ইউনিয়নের গ্রামের বাড়িগুলো এ দৃশ্য চোখে পড়ে। আমের মুকুল আসায় শিশু-কিশোরদের মধ্যে বাড়তি উচ্ছ্বাস চোখে পড়ে। সেই সঙ্গে মৌমাছির আনাগোনায় ভিন্ন এক আবহের সৃষ্টি হয়েছে।
বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে জানা গেছে, আমের মুকুল ফুটতে শুরু করায় এ বছর ভালো ফলনের আশা করছেন গৃহস্থরা। সেই সঙ্গে আবহাওয়া অনুকূলে থাকার কথাও বলছেন।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা আবু হানিফ জানান, গেল সপ্তাহ থেকে গাছে আমের মুকুল আসতে শুরু করেছে। মূলত দেশী জাতের গাছে এই আগাম মুকুল আসা শুরু করেছে। এ সময় বিভিন্ন পোকামাকড় মুকুলের ক্ষতি করে। এ পোকা দমনে কীটনাশক স্প্রে করলেও তা আক্রমণ করতে পারে না।
তবে এ কৃষি কর্মকর্তা বলেন, ‘পোকামাকড়ের আক্রমণের পরও যদি আবহাওয়া অনুকূলে থাকে তাহলে খুব ভালো ফলন পাওয়ার আশা করা যায়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.