চাঁদপুর বালিয়ায় কয়েকটি কেন্দ্র ভোট গ্রহণে অনুপযোগী

আগামী ১১ নভেম্বর চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের মাঝে নানা উৎসাহ উদ্দীপনা দিন দিন বাড়তে শুরু করেছে। তবে বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে ভোট কেন্দ্রগুলো ভোটগ্রহণের অনুপোযোগী হওয়ায় এ নিয়ে ভোটারদের মাঝে দ্বিধা, সংঞ্চয় দেখা দিয়েছে।

গত কদিনে চাঁদপুর সদর উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের নির্ধারিত কয়েকটি ভোট কেন্দ্র পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ভোটারের সংখ্যা হিসেবে সেগুলো ভোট গ্রহনের অনেকটা অনুপোযুগী। কিছু কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা বেশি কিন্তু দেখা গেছে কেন্দ্রের কক্ষসংখ্যা অনেক কম, কিংবা ভবন এবং ভোটারদের দাঁড়ানোর মাঠ সংকট রয়েছে। এছাড়া কিছু কিছু কেন্দ্রে নতুন ভবন নির্মানের কাজ চলছে এবং মাঠে নির্মান সামগ্রী রাখা হয়েছে।

এর মধ্যে রয়েছে ৯নং বালিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের গুলিশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র। একই ওয়ার্ডের ২ নং ওয়ার্ডের মমতাজ উদ্দিন সপ্রাবি কেন্দ্র, ৬নং মৈশাদী ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের হামানকদ্দী সপ্রবি কেন্দ্রটি অনেকটাই ভোট গ্রহনের অনুপযোগী।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, চাঁদপুর সদর উপজেলা ৯নং ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের গুলিশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের সামনের মাঠে নতুন ভবন নির্মাণের ইট, বালু, রড সহ বিভিন্ন নির্মান সামগ্রী ফেলে রাখা রয়েছে। এই কেন্দ্রটি সম্পূর্ণভাবে ভোট গ্রহণের অনুপোযোগী বলে মনে করছেন ওই ওয়ার্ডসহ অন্যান্য ওয়ার্ডের ভোটাররা। এই বিদ্যালয়ের দুটি ভনের একটি ভবন পুনঃনির্মাণের জন্য ভেঙে ফেলা হয়েছে। বর্তমানে অফিস কার্যক্রমের ভবনটির দুটি কক্ষে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

ভোটাররা জানান, এই ওয়ার্ডের সর্বমোট ভোটার সংখ্যা ২১৩৫ জন। ছোট্ট দুটি কক্ষে এই বিপুলসংখ্যক ভোটাদেরর ভোট দেওয়া সম্ভব নয়। এছাড়াও ওই কেন্দ্রের মাঠে নতুন ভবনের জন্য ইট, বালু, সিমেন্ট সহ বিভিন্ন নির্মাণসামগ্রী স্তূপ করে রাখা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, ভোটের দিন যদি কোন প্রকার বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়, কিংবা কোন অনাকাঙ্খিত হামলা ও মারামারির ঘটনা ঘটে। তাহলে এই নির্মাণ সামগ্রী প্রার্থীদের সর্মথকরা মারামারির জন্যে ব্যবহার করতে পারে। তাই এই কেন্দ্রটি খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। এ বিষয়ে চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমরা বিষয়টি অবগত নই। তবে আমরা এ বিষয়ে খোঁজখবর নিবো। যদি ভবন না থাকে তাহলে অস্থায়ীভাবে সামিয়ানা টানিয়ে ভোট গ্রহণের ব্যবস্থা করা হবে। ভোট কেন্দ্রের মাঠের নির্মাণ সামগ্রী বিষয়ে তিনি বলেন, এগুলো দ্রুত সম্প্রসারণ করার ব্যবস্থা করা হবে।

স্টাফ রিপোটার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *