চাঁদপুর রঘুনাথপুরে পূর্বের শত্রুতার জের ধরে বসত ঘরে আগুন থানায় অভিযোগ

চাঁদপুর রঘুনাথপুরে পূর্বের শত্রুতার জের ধরে বসত ঘরে আগুন থানায় অভিযোগ
চাঁদপুর রঘুনাথপুরে পূর্বের শত্রুতার জের ধরে বসত ঘরে আগুন থানায় অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার। চাঁদপুর সদর উপজেলা ১০ নং লক্ষীপুর ইউনিয়নে ১নং ওর্য়াড রঘুনাথপুর গ্রামের বাড়ীর সিমানা নিয়ে পূর্বের শত্রুতার জের ধরে রাতের আধারে ঘরে আগুন দিয়েছে প্রতিপক্ষ শত্ররা থানায় অভিযোগ। জানা যায় গত ১৯/১২/২০ইং তারিখ বাড়ির উপর মোঃ নোয়াব খানের জায়গার ওপর জোরপূর্বক সীমানা বসায় আমিন শেখ ও তার পরিবাররা। তাদের জায়গার উপর জোরপূর্বক সীমানা বসালে নোয়াব খানের ছেলে মোঃ৷ বিল্লাল খান জিজ্ঞাসা করতে গেলে তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে একা পেয়ে সন্ত্রসী কাায়দায় দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা করে আহত করে। তবে আহত করলেন যারা তারা হলেন আমিন শেখ ( ৪৫) পিতা মৃত্যু মোঃ নুরুল ইসলাম শেখ মমিন শেখ(,৪০) নান্নু শেখ পিতা জব্বার শেখ, শাহিদা বেগম(,৪০) স্বামী আমিন শেখ, নাসরিন বেগম (৩০), স্বামী মমিন, ময়মনা বেগম,( ৬০) স্বামী নুরুল ইসলাম শেখ,তার পরিবারাসহ কয়েকজন সন্ত্রসী । এ দিকে সিমানা জোরপূর্বক বসানোর ঘটনা নিয়ে কেন্দ্র করে গত ২০/১২/২০ ইং তারিখে রাতের আঁধারে গভীর সময় নোয়াব খানের পূর্বের বসত ঘরে আগুন জ্বালিয়ে দেয় প্রতিপক্ষ সেই শত্রুতারা। উক্ত ঘরটি সাথে সাথে অগ্নিসংযোগ আগুনে পুরে ছাই ছাই হয়ে যায়। তবে আগুনের লিলিহান দেখে আসে পাশের মানুষ ছুটে এসে সাথে সাথে পানি মেরে নিবাইতে সক্ষম হয়। এদিকে মোহাম্মদ বিল্লাল খান জানান আমাদের বাড়ির উপর জোরপূর্বক সিমানা বসায় উক্ত সিমানা সরিয়ে নিতে বল্লে আমার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে কিল গুশিও লাথিমেরে আমােকে আহত করে। আমিন শেখসহও তার পরিবারাসহ সন্ত্রসীরা। আর সেই সূত্রপাত ধরে তারাই তাতের আঁধারে আমাদের ঘরে আগুন জ্বালিয়ে দেয়। মোঃ নোয়াব খান জানান আমার মেয়ে অসুস্থ থাাকায় গতকয়েক দিন হয় আমি ও আমার স্ত্রী ঢাকায় যাই মেয়েকে দেখতে মোবাইলে শুনতে পাই ছেলেটাকে বাড়িতে একা পেয়ে পিটিয়ে আহত করে আবার পর দিন রাতে আমার একটি বসত ঘরে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে এবং প্রান নাশের হুমিক দিচ্ছে। ঘরটি আগুনে পুরে ছাই হয়ে যায় আসবাপত্র সহ। আমি আইনের মাধ্যমে চাঁদপুর জেলা প্রশাসকও পুলিশ সুপার সুদৃষ্টি কামনা করি এবং এর সুষ্ট বিচার চাই। তবে এই ব্যাপারে চাঁদপুর মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.