চাঁদপুর লঞ্চ ঘাটে যাত্রী হয়রানী তৎপর পুলিশ প্রশাসনও

স্টাফ রিপোর্টার চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনালে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ছুটে আসা ঘরমুখো মানুষের ভিড় ক্রমশ বেড়েই চলেছে। যাত্রীবাহী লঞ্চগুলোতে সরকারের বেঁধে দেওয়া কিছু নিয়ম-কানুন পালন করার কথা থাকলেও তা অনেকটা শিথিল ছিল।
ফলে রাজধানী ঢাকার সদরঘাট থেকে ছেড়ে আসা প্রতিটি লঞ্চে উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। এতে প্রচণ্ড গরমের মধ্যে এসব যাত্রীদের দুর্ভোগের কমতি ছিল না।
তবে নির্ধারিত ভাড়ায় ঈদে ঘরমুখো যাত্রীরা কর্মস্থল থেকে চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনাল পর্যন্ত পৌঁছলেও এখান থেকে তাদের বাড়ি যাওয়া পর্যন্ত বাড়তি ভাড়া গুনতে হচ্ছে। দূরত্বভেদে সিএনজিচালিত অটোরিকশা ৫০ টাকার ভাড়া হাঁকছে এক শ থেকে দেড় শ টাকা পর্যন্ত। এমন পরিস্থিতিতে জেলা প্রশাসকের নির্দেশে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হেলাল চৌধুরী টার্মিনাল এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন।
এ সময় বেশ কিছু যানবাহনকে আর্থিক জরিমানা আদায় করতে দেখা গেছে। শুধু তাই নয়, পরিস্থিতি সামাল দিতে বিআইডাব্লিউটিএ, নৌপুলিশ ও কোস্ট গার্ড কর্মকর্তা ও সদস্যরা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খুলে সেখানে দায়িত্ব পালন করছেন। এতেও যাত্রীর চাপ সামাল দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে তাদের।
নৌপুলিশ চাঁদপুর অঞ্চলের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ কামরুজ্জামান বলেন, পরিস্থিতি যা-ই হোক। যাত্রী হয়রানি, বাড়তি ভাড়া কিংবা চাঁদাবাজির কোনো সুযোগ নেই।
চাঁদপুর বন্দর কর্মকর্তা এ কে এম কায়সারুল ইসলাম বলেন, সরকারের নিয়ম মেনে যাত্রীবাহী লঞ্চগুলো চলাচলের জন্য কঠোর নির্দেশনা কার্যকর করতে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.