চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনাল হকারদের দখলে ও যাত্রী হয়রানি

চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনাল হকারদের দখলে ও যাত্রী হয়রানি
চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনাল হকারদের দখলে ও যাত্রী হয়রানি

স্টাফ রিপেটার-বৃহত্তর চাঁদপুর লঞ্চ টার্মিনাল এখন হকারদে দখলে বিআইডব্লিউটি ও পুলিশ প্রশাসন –নিরব ভুমিকা পালন করছে। তবে জানাযায় এখান দিয়ে ঢাকা টু চাঁদপুর বরিশাল লক্ষ্য লক্ষ্য যাত্রী প্রতিদিন এই টার্মিনাল দিয়ে যাতায়াত করছে। তবে সরকারের লক্ষ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে এই টামর্নিাল হবে বৃহত্তম টার্মিনাল। আর হকাররা দখল করে যাত্রী হারানি করছে প্রতিনিয়োত। বিআইডব্লিউটি ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে যাত্রী হয়রানি ও হকার যেন না বসে লঞ্চ টার্মিনালে বিতরে। কিন্তু অবৈধ ভাবে দখল করেছে কিছু অসাধু হকার ফল ব্যাবসায়ীও কলা রোটি ব্যাবসায়ীরা। তারা প্রতিদিন এ ভাবেই অবৈধ ব্যাবসা করে যাচ্ছে। তারা হলেন ফল ব্যাবসায়ী কোলিবা গানের মৃত হযর আলী বেপারীর ছেলে মোঃ চাঁন মিয়া (৪৩) মাদ্রসা রোর্ডেও মোঃ আলীর ছেলে মোঃ জসিম (৩৫)সহ ৮/ ১০টি হকার রয়েছে তার যাত্রী হয়রানির পাশাপাশি পরিবেশ দূশন করছে। তবে অনেকে অভিযোগ করে বলছেন বিআইডব্লিউটি কর্মকতা টি আই মোঃ শাহআলম প্রতিদিন তাদের কাছ থেকে ৩শ থেকে ৫শ টাকা করে হাতিয়ে নেয়। এ ভাবে মাসে মোটা অংকে টাকা তুলে নিচ্ছে হকার থেকে তিনি। এ ব্যাপারে টিআই মোঃ শাহআলম কাছে যান্তে চাইলে তিনি বলেন টাকার বিষয় যে অভিযোগ দিয়েছে তাহা মিথ্যে হকার উঠিয়ে দিলে পূনরায় এসে বসে যায়। এ বিষয় চাঁদপুর নৌ থানার এস আই মোঃ রিয়াজ জানান টাকা তুলে নিচ্ছে কেবা কারা তাহা জানিনা তবে আমি অনেক বার তাদেরকে উঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তারা সড়ছেনা । তবে কেউ না কেউর ইশারায় বসছে মনে হয় তারা। তবে বিআইডব্লিউটির কর্মকতারা তারা কি করছে তারা বল্লে তো হকার বিতরে মাল নিয়ে প্রবেশ করতে পারে না। এদিকে বিআইডব্লিউটির কিছু অসাধু কর্মকতার কারনে হকারদের যাত্রী হয়রানি বেরেই চলছে। অনেকে জানিয়েছেন বরিশাল গামি লঞ্চ এর যাত্রীদের ফল বেশী দামে বিক্র করেছে আবার টাকা আগে হাতিয়ে নেয় পরে লঞ্চ ছেড়ে দিলে মাল না নিয়ে দড়িয়ে লঞ্চে উঠে কারন ফেমিলী যে রয়েছে তাদের। এ রকম বহু ঘটনা ঘটেছে। তবে এ ব্যাপাররে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার হকার উচ্ছেদ করে লঞ্চ টার্মিনাল যেন পরিস্কার রাখে প্রশাসক আর অবৈধ কর্মতকার বিরুদ্ধে আইনি ব্যাবস্থা নিবেন বলে জানান এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.