চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সমাবেশে পুলিশের বাধা সংঘর্ষে আহত অর্ধশত

আশিক বিন রহিম চাঁদপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের উদ্যোগে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে আয়োজিত সমাবেশের শেষের দিকে একদল পুলিশ এসে হানা দেয় সভাস্থলে। এসময় পুলিশ সভামঞ্চ সরিয়ে সবাইকে সভাস্থল ত্যাগ করার জন্য নির্দেশ দেয়।

এসময় সভাস্থলে আগত হাজার হাজার নেতাকর্মীরা প্রতিবাদ জানিয়ে শ্লোগান দিলে পরিস্থিতি উত্তেজনায় রূপ নেয়। এরপর নেতা-কর্মীদের সাথে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ লাঠিচার্জ করলে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে উপস্থিত নেতাকর্মীরা । অন্যদিকে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ারসেল ও ফাঁকা গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এ সময় পুলিশ, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মী ও পথচারীসহ কমপক্ষে অর্ধশত আহত হয়েছে।

ঘটনার বিববরণে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, গতকাল ৯ মার্চ বিকেল ৪টার দিকে চাঁদপুর শহরের নতুন বাজার এলাকায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে লাগামহীনভাবে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতীর প্রতিবাদে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বানে আয়োজিত সমাবেশ স্থলে এই ঘটনা ঘটে। এ সময় একটি খোলা ট্রাকের উপরে অস্থায়ী মঞ্চ স্থাপন করে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করছিল জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল। সভাটি পুলিশি বাধার পর ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার পর স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীরা এলাকা ত্যাগ করেন। পরে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান করেন। ঘটনাস্থল থেকে রাস্তায় বের করা ট্রাক জব্দ করে পুলিশ।

খবর পেয়ে চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন, চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুর রশিদ মিয়া, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সুজন কান্তি বড়ুয়া, সেকেন্ড অফিসার মোহাম্মদ লোকমান হোসেন, এস আই রাশেদুজ্জামান, এস আই আবু হানিফ, নতুন বাজার ফাঁড়ির পুলিশ সদস্য ও ডিবি পুলিশ সদস্যরাসহ প্রায় একশত পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে অবস্থান করেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা চাঁদপুর সময়কে জানান, মূলতঃ দ্রব্যমূল্য উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে গতকাল বিকেল ৪ টার সময় শহরের পৌর ঈদগাহ মাঠ থেকে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক হযরত আলী ঢালী ও সদস্য সচিব কাজী মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে শান্তিপূর্ণ একটি বিশাল মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের পাল বাজার এলাকা থেকে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে গিয়ে সমাবেশ শুরু করেন। সেখানে তারা একটি খোলা ট্রাকের উপরে অস্থায়ী প্যান্ডেল স্থাপন করে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করে। বিক্ষোভ সমাবেশটি প্রায় শেষের দিকে ঠিক তখন চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ এসে বাধা প্রদান করলে মুহূর্তেই পরিস্থিতি ঘোলাটে হয়ে যায়। প্রতিবাদ সমাবেশে বাঁধা প্রদান করায় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। কয়েক মিনিটের মধ্যে সেখানে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ সদস্যরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ করেন। এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীরা, পুলিশ সদস্য ও পথচারীরা দৌড়ে পালাতে গিয়ে অন্তত ২০ জন কম বেশী আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। ঘটনার পরপরই ওই সড়ক দিয়ে কয়েক ঘণ্টার জন্য যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিলো। ঘটনার পর দীর্ঘ সশয় ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করে।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি জানান, বিএনপির নেতাকর্মীরা রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে সড়কের ওপর সমাবেশ করছিল। এতে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় পুলিশ বাঁধা দিলে বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। যে ট্রাকটির উপর দাঁড়িয়ে সমাবেশ করেছিল সেটি আমরা জব্দ করেছি। যাদের কারণে এই ঘটনার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তাদের প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে বলেও তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.