‘জ্যাক স্প্যারো’ নিয়ে ধোঁয়াশা

সাবেক স্ত্রী আম্বার হার্ডের বিরুদ্ধে মামলা জেতার পরই ভক্তদের মধ্যে গুঞ্জন শুরু হয়—জ্যাক স্প্যারো চরিত্রে কি ফিরবেন জনি ডেপ? সেই গুঞ্জনের পালে হাওয়া দেন ডিজনির এক সাবেক কর্মকর্তা। জানান, অভিনেতা চাইলে নিশ্চিতভাবেই তাঁকে ফেরত পেতে চাইবে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি। কারণ, ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’ সিনেমা সিরিজটি ডিজনি ও জনি—উভয়ের জন্যই সোনার ডিম পাড়া হাঁসের মতোই। ভালো অভিনেতা হিসেবে আগে থেকেই স্বীকৃত হলেও এই সিনেমা সিরিজ দিয়েই সারা দুনিয়ায় ব্যাপক পরিচিতি পান জনি। কিন্তু ২০১৮ সালে তাঁর বিরুদ্ধে স্ত্রী নির্যাতনের অভিযোগ ওঠার পর সিরিজটি থেকে অভিনেতাকে বাদ দেয়।

 ‘জ্যাক-স্প্যারো-নিয়ে-ধোঁয়াশা

মামলা জেতার পর খবর রটে, অভিনেতার কাছে দুঃখ প্রকাশ করেছে ডিজনি। শুধু তা–ই নয়, ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’-এর নতুন কিস্তিতে অভিনয়ের জন্য ৩০১ মিলিয়ন ডলারের প্রস্তাবও দিয়েছে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশ পেলেও চুপ ছিলেন অভিনেতা। তবে মুখ খুলেছেন জনি ডেপের মুখপাত্র। জানিয়েছেন, জনিকে ডিজনির প্রস্তাব পাওয়ার খবর পুরোটাই বানোয়াট।
অভিনেতার মুখপাত্র বেন রটেনবর্ন এনবিসি নিউজকে বলেন, ‘জনিকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, ডিজনি যদি আপনার কাছে ৩০০ মিলিয়নের প্রস্তাব নিয়ে আসে আর ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’-এ অভিনয়ের প্রস্তাব দেয়; দুনিয়ার কোনো কিছুই আপনাকে ফেরাতে পারবে না, তাই না? জনি বলে, এটা সত্যি।’

ডিজনির প্রতি অভিনেতা কতটা বিরক্ত, সেটা তুলে ধরে এই মুখপাত্র আরও বলেন, ‘দুই বছর ধরে জনিকে “স্ত্রী নির্যাতনকারী” হিসেবে সারা দুনিয়ায় প্রচার করা হয়েছে। ডিজনি নিজেরা “নিষ্কলঙ্ক” থাকার জন্য তাঁর সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করেছে। মিটু আন্দোলন তখন পূর্ণমাত্রায় চলছিল। অথচ তারা রাইড থেকে ছবির কোনো চরিত্রটিকে বাদ দেয়নি, ক্যাপটেন জ্যাক স্প্যারোর পুতুল বিক্রিও বন্ধ করেনি।’

মুখপাত্র নাকচ করে দিলেও অনেক গণমাধ্যম জানিয়েছে, ভক্তদের কথা চিন্তা করে শেষ পর্যন্ত জনি ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান’-এ ফিরতে রাজি হতে পারেন।
২০০৩ সাল থেকে শুরু করে ২০১৭ পর্যন্ত সিরিজের পাঁচটি সিনেমার সব কটিতেই জ্যাক স্প্যারো চরিত্রে অভিনয় করেন জনি ডেপ। সর্বশেষ ছবি ছিল ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারিবিয়ান—ডেড মেন টেল নো টেলস’।

Leave a Reply

Your email address will not be published.