স্বামী–স্ত্রীর ঝগড়ার অডিও আদালতে

সাবেক স্ত্রী আম্বার হার্ডের বিরুদ্ধে করা জনি ডেপের মানহানির মামলার শুনানির চতুর্থ ও শেষ দিন ছিল সোমবার। এ দিন আদালতে উপস্থাপন করা হয় স্বামী–স্ত্রীর কথোপকথনের অডিও। সেখানে জনিকে বলতে শোনা গেছে, ‘ছাড়াছাড়ি না হলে রক্তারক্তি কাণ্ড হয়ে যাবে!’ এমনকি স্ত্রীর ওজন নিয়ে অবমাননাকর কথাও বলেছেন তিনি। অন্যদিকে হার্ডকে বলতে শোনা গেছে, ‘সিগারেটের ছাই অন্য জায়গায় ফেলো। পরিণতি কিন্তু ভালো হবে না।’

একটি অডিওতে আম্বারকে বলতে শোনা গেছে, ‘সোফায় যাও। তুমি আমার গায়ে সিগারেটের ছাই ফেলেছ।’ এর অর্থ কী, জানতে চান আইনজীবীরা। জবাবে জনি বলেন, ‘এ তো পরিষ্কার। সে আমাকে সোফায় গিয়ে বসতে বলেছে।’ যদিও তিনি স্বীকার করেছেন যে হয়তো আম্বারের গায়ে সিগারেটের ছাই পড়ে থাকবে। কিন্তু তিনি যন্ত্রণায় চিৎকার করেননি।

 স্বামী–স্ত্রীর-ঝগড়ার-অডিও-আদালতে

জনি–আম্বার দম্পতির অস্ট্রেলিয়ার বাড়ির ব্যবস্থাপক বেন কিংও সাক্ষ্য দিয়েছেন আদালতে। দুজনার এক দিনের কথোপকথন তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আম্বার একদিন জনিকে বলছিল, হাত সরিয়ে নিচ্ছো কেন, তুমি আমাকে আর ভালোবাসো না?’ জবাবে জনি বলেছেন, ‘অবশ্যই বাসি। বোকার মতো কথা বলো না।’ বেন জানান, আম্বারের আচরণ সেদিন ছিল একটা বখে যাওয়া কিশোরীর মতো। সেদিন ঝগড়া–ঝাটির পর তিনি জনির আঙুলের কাটা অংশ বারের নিচে পেয়েছিলেন।

গত সোমবার ভার্জিনিয়ার শুনানির সময় উপস্থাপন করা হয় শাশুড়িকে লেখা জনির চিঠির অংশ। সেখানে নিজেকে এক ‘হতভাগা বুড়ো আসক্ত’ ব্যক্তি হিসেবে উল্লেখ করেছেন তিনি, যে কি না স্ত্রী ও তাঁর পরিবারের ওপর নির্ভরশীল। তিনি লিখেছিলেন, ‘আপনার জানা দরকার যে আপনাদের মেয়ে হতভাগা একটা বুড়ো আসক্ত ব্যক্তিকে দেখাশোনার ঊর্ধ্বে চলে গেছে। এক সেকেন্ডের জন্য সে আমাকে চোখের আড়াল করত না। আমি ঠিক আছি কি না, সব সময় চোখ রেখেছে। তাঁর মনোবল এক হাজার পুরুষের সমান।’

শুনানিতে সর্বশেষ সুযোগ আসে আম্বারের আইনজীবীর, যেখানে বলা হয় জনির স্ত্রী নিপীড়নের কারণ মাদক ও অ্যালকোহলের প্রভাব। যদিও এসব অভিযোগকে অতিরঞ্জিত দাবি করে আম্বারের কাঁধেই দোষ চাপিয়েছেন জনি। তাঁর দাবি, সংসারে অশান্তিকে আম্বারই উসকে দিতেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.