চলে গেলেন ‘ডক্টর হু’ অভিনেতা

সাত দশকজুড়ে বিস্তৃত ক্যারিয়ারে যবনিকা পড়ল অবশেষে। প্রখ্যাত ব্রিটিশ অভিনেতা বারনেড ক্রিবিনস ৯৩ বছর বয়সে মারা গেছেন। তাঁর পরিবারের বরাতে খবর নিশ্চিত করেছে বিবিসি। বারনেড ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী। অভিনয় করতেন তো বটেই, গাইতেন দারুণ। ১৯৭০ সালে মুক্তি পাওয়া ‘দ্য রেলওয়ে চিলড্রেন’ সিনেমায় অভিনয় করেন শিশুদের কাছে তিনি ব্যাপক জনপ্রিয়তা পান। সত্তরের দশকে টিভি সিরিজ ‘দ্য ওমব্লেস’-এ কণ্ঠ দিয়ে তিনি শিশুদের কাছে আইকনিক এক চরিত্র হয়ে ওঠেন।

১৯৬৬ সালে মুক্তি পাওয়া ‘ডক্টর হু’ অবলম্বনে নির্মিত সিনেমাতে তাঁর অভিনয় মনে রাখার মতো। ৪১ বছর পর ২০০৭ থেকে ২০১০ পর্যন্ত ‘ডক্টর হু’ সিরিজেও অভিনয় করেন তিনি। ২০১৮ সালে বয়স যখন ৯০ ছুঁই ছুঁই, বারনেড তখন নিজের আত্মজীবনী প্রকাশ করেন। যার শিরোনামে যেন নিজের জীবনেই এক কথায় প্রকাশ করেন অভিনেতা—‘বারনেড হু?: সেভেনটি ফাইভ ইয়ারস অব ডুয়িং জাস্ট অ্যাবাউট এভরিথিং’।

চলে গেলেন ‘ডক্টর হু’ অভিনেতা-02

১৯২৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর ওল্ডহামে জন্ম হয় বারনেডের। অনেক বছর মঞ্চে অভিনয়ের পর ১৯৫৭ সালে বড় পর্দায় অভিষেক হয় ‘ডেভি’ দিয়ে। ষাটের দশকে কমেডি সিনেমা ‘টু-ওয়ের স্ট্রেচ’ ও ‘ক্যারি অন’ সিরিজ দিয়ে প্রশংসা পান। ১৯৭২ সালে আলফ্রেড হিচককের ‘ফ্রেনজি’তেও দেখা যায় তাঁকে। সর্বশেষ ২০১৮ সালে তিনি অভিনয় করেন ‘প্যাট্রিক’ ছবিতে। গান, মঞ্চ, টিভি, চলচ্চিত্র মিলিয়ে সাত দশকের দীর্ঘ ক্যারিয়ার। তবে মানুষ তাঁকে বেশি মনে রেখেছে ৪১ বছেরর ব্যবধানে ‘ডক্টর হু’তে দুই কাজের জন্য।

নাটকের দলের কাজ করার সময় উঠতি অভিনেত্রী গিলিয়ান ম্যাকবারনেটের প্রেমে পড়েন। ১৯৫৫ সালে দুজন বিয়ে করেন। এরপর দীর্ঘ ৬৬ বছর চলে তাঁদের দাম্পত্য জীবন। তাঁর স্ত্রী গিলিয়ান প্রয়াত হন গত বছরের অক্টোবরে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.