চাঁদপুরে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাবে শঙ্কা

দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার সাথে সাথে শুরু হয়েছিল ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব। এতে সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগকে দারুন বেকায়দায় পড়তে হয়েছিল। কিন্তু সরকারের বিচক্ষণ হস্তক্ষেপে শেষ অবদি ডেঙ্গু চিকিৎসায় বেশ অগ্রগতি হয়েছে। ডেঙ্গুর জন্য আলাদা হাসপাতাল চালু করার মাধ্যমে করোনা থেকে আলাদা চিকিৎসা দিয়ে নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে। যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

বর্তমানে দেশে করোনা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে বলা চলে। সরকার ইতোমধ্যে দেশের প্রবীণ নাগরিক সহ অধিকাংশ জনগোষ্ঠির টিকা প্রদান নিশ্চিত করেছে। যার কারণে বর্তমানে করোনার প্রদুর্ভাব আশানুরূপভাবে কমে এসেছে। স্কুল শিক্ষার্থীদেরকে খুব সহসাই টিকা প্রদান নিশ্চিত করা গেলে আমরা আশাবাদি আমরা করোনা মুক্ত একটি সমাজ পেতে যাচ্ছি। যেখানে মানুষ স্বধীনভাবে চলাফেরা করতে পারবে।

তবে সম্প্রতি চাঁদপুরে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়ার কারণে কিছুটা শঙ্কা দেখা দিয়েছে। চাঁদপুর সদর হাসপাতালে ইতোমধ্যে ৩ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নেয়ার সংবাদ পাওয়া গেছে। যা অত্যন্ত শঙ্কার বিষয়। আমরা মনেকরি এর জন্য স্বাস্থ্য বিভাগের পাশাপাশি এর জন্য সাধারণ নাগরিকদেরকে স্বচেতন হতে হবে। ঘুমানোর সময় অবশ্যই মশারি টানিয়ে ঘুমানো জরুরী। তাছাড়া সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উচিৎ চাঁদপুরের সর্বত্র মশা নিধন কার্যক্রম চালু করা।

নির্দিষ্ট কিছু স্থানে মশা নিধন সীমাবদ্ধ না রেখে আনাচে কানাচে মশার বিস্তার রোধে কার্যক্রম চালু করা অপরিহার্য। ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব যদি মহামারির মতো ছড়িয়ে পড়ে তাহলে আমাদের উপায় থাকবে না। করোনা মহামারির তৃতীয় ঢেউ শুরু হয়ে গেলে আরো বেকায়দায় পড়তে হবে আমাদেরকে। তাই এখন ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে কার্যকর প্রদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরী বলে মনেকরছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *