তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া এ দেশে আর কখনো নির্বাচন হবেনা : অধ্যক্ষ মো. সেলিম ভূইয়া :

 

হাজীগঞ্জ প্রতিনিধি

হাজীগঞ্জে জ্বালানী তেল নিত্য, প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি এবং ভোলায় পুলিশের গুলিতে ছাত্রনেতা ও স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ

সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (২৭ আগষ্ট) বিকেলে পূর্ব মকিমাবাদ সর্দার বাড়ির বালুর মাঠে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে এই প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এরপূর্বে

 

হাজীগঞ্জ বাজারে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে সমাবেশস্থলে এসে উপস্থিত হয়।
প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাক্ষ মো. সেলিম ভূইয়া।

তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্য বলেন, আগামীতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে বাদ দিয়ে এ দেশে আর কখনো নির্বাচন হবেনা। শেখ হাসিনা যে নীল নকশা

একে রেখেছেন শহীদ জিয়ার সৈনিকেরা তা বাস্তবায়ন করতে দিবেনা। তাই আগামী দিনে বিএনপির প্রতিটি নেতাকর্মী রাজপথ দখল করলেই এই শেখ হাসিনা সরকার বিদায় নিতে

বাধ্য হবে।

পৌর বিএনপির সভাপতি মো. নাজমুল আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এম এ রহিম পাটওয়ারীর সঞ্চালনা প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান বক্তার

বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় বিএনপির কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি লায়ন ইঞ্জিনিয়ার মমিনুল হক।

 

তিনি তার বক্তব্য বলেন, এই দেশের গনতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কোন বিকল্প নেই। আর এ জন্য আমাদেরকে রাজপথ দখল করতে হবে। তাহলে সরকারের টনক নড়বে। এর মধ্যেই হাসিনা সরকার চেয়ার ছেড়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করবে। ফলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে বিএনপি। এতে

বিএনপি সরকার গঠন করার মাধ্যমেই দেশের গনতন্ত্র ফিরে আসবে।

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য এস এম কামাল উদ্দিন চৌধুরী, মো. রফিক সিকদার, কাজী রফিকুল ইসলাম, মো. রফিক, চাঁদপুর জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক

সম্পাদক মো. মোস্তফা খান সফরী, ওলামা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সচিব মাও. নজরুল ইসলাম তালুকদা, উপজেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজীগঞ্জ ইমাম হোসেন,

সহ-সভাপতি মো. মনিরুজ্জামান মনির, পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক (ভারপ্রাপ্ত) মো. খোরশেদ আলম ভুট্টো।

ওই সময় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মো. আনিছুর রহমান কানু পাটওয়ারী, সাংগঠনিক সম্পাদক এম এ নাফের শাহ, পৌর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি মো.

নুরুন্নবী সম্রাট, সহ-সভাপতি মো. হাজী মিজানুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শাহাবুদ্দিন সাবু, উপজেলা যুবদলের আহবায়ক মো. আকতার হোসেন দুলাল, যুগ্ন-আহবায়ক

মো. হুমায়ুন কবির সুমন, পৌর যুবদলের আহবায়ক মো. বিল্লাল হোসেন পাটওয়ারী, সদস্য সচিব মো. মিজানুর রহমান সেলিম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক মো. বিল্লাল

হোসেন বেলাল, সদস্য সচিব সাইফুল ইসলাম মিঠু চৌধুরী, উপজেলা মৎস্য দলের সভাপতি মো. ইমান হোসেন, পৌর শ্রমিক দলের সভাপতি মো, রাশেদ আলম হীরা, উপজেলা

ছাত্রদলের আহবায়ক মো. ফয়সাল হোসাইন, সদস্য সচিব মো. জুয়েল রানা তালুকদার, পৌর ছাত্রদলের আহবায়ক মো. আবু ইউসুফ, সদস্য সচিব দ্বীন ইসলাম টগরসহ বিএনপি,

যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, শ্রমিক দল, ছাত্রদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.