তীব্র তাবদাহে পুড়ছে চাঁদপুর

চাঁদপুর সময় রিপোর্ট তীব্র তাবদাহে পুড়ছে চাঁদপুররে র্সবত্র। কোথায়ও স্বস্তি নইে। রোড যনে আগুনরে গোলায় পরনিত হয়ছে। যখোনে লাগছে সখোনইে পুড়ে যাচ্ছ।ে গত কয়কেদনিেে থক রাস্তাঘাটওে মানুষরে চলাচল কমে এসছে।ে তাপযুক্ত রোদরে মাঝে বাতাস প্রবাহতি হলওে তাতে নইে কোন শীতলতা। তবে েেঅনক বলছনে, বাতাস থাকাতে কছিুটা রক্ষ্যা মানুষরে। খাল বলি নদী নালা হাওর দঘিী সবখানে শুধু খা খা রোদ্দুর। যনে প্রচন্ড তাপে পুড়ে যাচ্ছে সব। এরই মধ্যে কোথাও কোথাও তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তারও বেশি রেকর্ড করা হয়েছে।
একই সময় দেশটির আবহাওয়া দপ্তর দক্ষিণাঞ্চলীয় ভারি বৃষ্টিপাতের সতর্কতা ঘোষণা করে করছে আবহাওয়া অফসি। গেল কয়কেদনি র্পূবে
মুশলধারে বৃষ্টি হয়ছেলি চাঁদপুররে অধকিাংশ এলাকায়। কন্তিু বৃষ্টইি েেহয়ছ সইে বৃষ্টি গরম কমাতে পারেনি। বৃষ্টরি মধ্যেও মানুষরে শরীর পুরে যাচ্ছে যনে। গত ৩/৪দিনে কোন বৃষ্টরি দেখা নেই। তবে আবহাওয়া অফসি বলছে বৃষ্টি হব।ে সমুদ্রে বার বার সংকতে দিয়ে আবার উঠিয়ে নওেয়া হচ্ছে।
আমাদের পার্শবর্তী ভারতের অবস্থা আরো ভয়াবহ। সখোনে তাপমাত্রা এতোটাই বেড়েছ যচ্ছে, মানুষরে সভাবকি জীবনযাত্রা একেবারইে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।
রাববার দিল্লির সফদারজং মানমন্দিরে তাপমাত্রা ৪৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড হয় আর উত্তর-পশ্চিম দিল্লির মুঙ্গেশপুরে ৪৯ দশমিক ২ ও দক্ষিণ-পশ্চিম দিল্লির নাজাফগড়ে হয় ৪৯ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
ভারতে চলতি বছর এ পর্যন্ত সফদরজংয়ের তামপাত্রাই সর্বোচ্চ ছিল। এদিন উত্তরপ্রদেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড হয় বুন্দেলখণ্ড অঞ্চলের বান্দা জেলায়।
ভারতের আবহাওয়া দপ্তরের তথ্যানুযায়ী, এ পর্যন্ত বান্দা জেলায় মে মাসে রেকর্ড হওয়া সর্বোচ্চ তাপমাত্রা এটি। এর আগে ১৯৯৪ সালের ৩১ মে জেলার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত উঠেছিল।
রাজস্থান রাজ্যের চুরুতে ৪৭ দশমিক ৯ এবং পিলানিতে ৪৭ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে বলে ভারতের আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে।
হিমাচল প্রদেশ, হরিয়ানা, দিল্লি, জম্মু, কাশ্মীর, লাদাখ, উত্তরাখণ্ড, পাঞ্জাব ও বিহারে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তারও বেশি রেকর্ড হচ্ছে বলে আবহাওয়া দপ্তরটি জানিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.