বালিয়ায় দুটি কেন্দ্রে ফের নির্বাচনের দাবি নারী প্রার্থীদের

চাঁদপুর সদর উপজেলার ৯নং বালিয়া ইউনিয়নের সদ্য অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনের সংরক্ষিত দু’টি ওয়ার্ডের একাধিক পরাজিত নারী প্রার্থী ফের নির্বাচনের দাবি জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে দু’টি ওয়ার্ডের চারজন নারী প্রার্থী জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বরাবর ফের নির্বাচনের দাবী জানিয়ে লিখিত আবেদন করেছেন। তারা হলেন, ৯নং বালিয়া ইউনিয়নের ১.২. ও ৩ নং ওয়ার্ডের পরাজিত মাইক প্রতীকের প্রার্থী শানু বেগম, অপর পরাজিত বই প্রতীকের প্রার্থী সেলিনা আক্তার এবং ৭.৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের পরাজিত সূর্যমুখী ফুল প্রতীকের প্রার্থী বিলকিস বেগম, বই প্রতীকের পরাজিত প্রার্থী (বর্তমান মেম্বার) ফাহিমা বেগম ও কলম প্রতীকের প্রার্থী নাসিমা বেগম।

আবেদন পত্রে তারা উল্লেখ করেন, নির্বাচনে উল্লেখিত ১.২.৩ এবং ৭.৮.৯ নং ওয়ার্ডের ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণে ব্যাপক অনিয়ম ও কারচুপি করা হয়েছে। সেখানে পরাজিত প্রার্থীদের ভোটাররা নিজেদের প্রছন্দের প্রার্থীদের ভোট প্রয়োগ করতে পারেননি।

বিজয়ী প্রার্থীদের লোকজন পেশিশক্তি ব্যবহার করে নিজেরাই ব্যালট পেপারে সিল মেরে বাক্স ভর্তি করেছেন। এছাড়া কয়েকটি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ শেষে কেন্দ্রে গুলোতে ভোট গণনা না করে ভোট বাক্স চাঁদপুর নিয়ে তাদের প্রাপ্ত ভোট গণনা করা হয়েছে বলে তারা তা তুলে ধরেন।

এ বিষয়ে ফের নির্বাচনের আবেদনকারী মাইক প্রতীকের প্রার্থী শানু বেগম, বই প্রতীকের প্রার্থী সেলিনা আক্তার এবং সূর্যমুখী ফুল প্রতীকের প্রার্থী বিলকিস বেগম, বই প্রতীকের প্রার্থী (বর্তমান মেম্বার) ফাহিমা বেগম ও কলম প্রতীকের প্রার্থী নাসিমা বেগম বলেন, এই নির্বাচনে আমরা অনেক আশা নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলাম। কিন্তু ভোটের দিন ব্যাপক অনিয়ম ও কারচুপির মাধ্যমে আমাদের পরাজিত করা হয়েছে। তারা এখানে প্রাপ্ত ভোট গননা না করেই ব্যালট বাক্স নিয়ে গেছেন। যা আমাদের অগোচরে নির্বাচনের ফলাফল নিয়েও কারচুপি করা হয়েছে। তাই আমরা উল্লেখিত অভিযোগের ভিত্তিতে এ দুটি কেন্দ্রে পুনরায় নির্বাচনের দাবি করছি।

স্টাফ করেসপন্ডেট

Leave a Reply

Your email address will not be published.