মতলবে কৃষিখেতে পোকামাকড় দমনে ব্যবহার হচ্ছে ‘আলোর ফাঁদ’

চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার আমনখেতের ক্ষতিকর পোকামাকড় দমনে ব্যবহার হচ্ছে ‘আলোর ফাঁদ’। পরিবেশবান্ধব ও খরচ কম হওয়ায় এই প্রযুক্তি কৃষকের মধ্যে সাড়া ফেলেছে। ধান পাকার আগ পর্যন্ত খেতে এই ‘আলোর ফাঁদ’ কার্যক্রম চলবে বলে জানিয়েছেন কৃষি কর্মকর্তারা।

উপজেলার ঠাকুরচর গ্রামের একটি আমনখেতে দেখা যায়, ধানের জমির পাশে তিনটি খুঁটি দিয়ে একটি বৈদ্যুতিক বাতি ঝোলানো হয়েছে। বাতির নিচে একটি পানির পাত্র রাখা হয়েছে, পাত্রে ডিটারজেন্টমিশ্রিত পানি। বাতি জ্বালানোর সঙ্গে সঙ্গে ফসলের জমির বিভিন্ন ক্ষতিকর পোকা এসে নিচে রাখা পানিতে পড়ে মারা যাচ্ছে। এভাবেই আলোর ফাঁদ ব্যবহার করে ফসলের জমিতে ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি নির্ণয় করা হয়। বৈদ্যুতিক বাতি, চার্জার ও সৌরবাতি দিয়ে এই কাজ করা হয়।

হানিরপাড় গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন ও পাঁচানী গ্রামের কৃষক ছানাউল্লাহ বলেন, তিনটি বাঁশের লাঠি, একটি বৈদ্যুতিক লাইট, আর পানি রাখার একটি পাত্র দিয়ে তৈরি করা হয় আলোর ফাঁদ। সন্ধ্যাবেলা জমির পাশে বসানো হয় এই ফাঁদ। অন্ধকার ধানের জমি থেকে বিভিন্ন প্রজাতির পোকা ছুটে এসে আলোর ফাঁদে আটকে পড়ে। এসব পোকার মধ্য থেকে ক্ষতিকর পোকা চিহ্নিত করে এসবের গায়ে সঠিক মাত্রায় কীটনাশক ও রাসায়নিক প্রয়োগ করা হয়।

উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ বছর মতলব উত্তর উপজেলায় ৭ হাজার ৬০০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের আবাদ করা হয়েছে। রোপা আমন মৌসুমে সচেতনতার অভাবে অনেক কৃষক জমিতে ক্ষতিকর পোকা আক্রমণ করার আগেই কীটনাশক প্রয়োগ করে থাকেন। এতে ফসলের জমির উপকারী অনেক পোকা মারা যায়।

আলোর ফাঁদ ব্যবহার করে ক্ষতিকর পোকার উপস্থিতি নির্ণয়ের পর ধানের জমিতে পিলা করে কীটনাশক প্রয়োগ করতে এই প্রযুক্তি ব্যবহারে কৃষকদের উৎসাহ দেওয়া হচ্ছ। উপজেলা উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মজিবুর রহমান বলেন, এই সময়ে ধানে বাদামি ঘাসফড়িং (কারেন্ট পোকা), সবুজ ঘাসফড়িং, পাতা মোড়ানো পোকা, গান্ধি পোকা, মাজরা পোকাসহ বিভিন্ন ক্ষতিকর পোকা আক্রমণ করে। পোকার উপস্থিতি নির্ণয় করতে আমনখেতে আলোর ফাঁদ ব্যবহার শুরু করা হয়, আর চলবে ধান কাটা পর্যন্ত। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ সালাউদ্দিন জানান, সব ব্লকে আলোর ফাঁদ ব্যবহার করা হয়েছে। বিষমুক্ত ফসল উৎপাদনের উপযুক্ত প্রযুক্তি।

মতলব উত্তর প্রতিনিধি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *