আশ্রায়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে চাঁদপুরে সাড়ে ১২ হাজার পরিবারের ঠাঁই হবে

চাঁদপুর জেলায় বাস্তবায়িত, বাস্তবায়নাধীন, প্রস্তাবিত ১০২টি আশ্রয়ন প্রকল্প, গুচ্ছগ্রাম ও আদর্শগ্রাম মিলিয়ে এ পর্যন্ত ৪ হাজার ৫৭২ টি ছিন্নমূল পরিবারকে গৃহ প্রদান করে পুনর্বাসন করা হয়েছে। বাস্তবায়নাধীন ও প্রস্তাবিত প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে আরো ৭ হাজার ৯২৫ পরিবার পুনর্বাসন হবে। এর মধ্যে রয়েছে আশ্রয়ণ প্রকল্প, গুচ্ছগ্রাম ও আদর্শ গ্রাম।

চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে জেলায় আশ্রয়ন প্রকল্পে পুনর্বাসিত হয়েছে ২ হাজার ৯শ’ ৭২ পরিবার, গুচ্ছাগ্রামে পুনর্বাসিত হয়েছে ১ হাজার ৫শ’ ৫৫ পরিবার এবং আদর্শ গ্রামে পুনর্বাসিত হয়েছে ৪৫ পরিবার। প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে আশ্রয়ন প্রকল্পে পুনর্বাসন হবে আরো ৭ হাজার ৮শ’ ৭৫ পরিবার, গুচ্ছগ্রামে ৫০ পরিবার। সব মিলিয়ে জেলায় পুনর্বাসন হবে ১২ হাজার ৪শ’ ৯৭ পরিবার।

প্রাপ্ত তথ্যে জানাগেছে, জেলায় মোট আশ্রয়ন প্রকল্প ৬৩টি (বাস্তবায়িত, মাটির কাজ চলমান, প্রস্তাবিত)। বাস্তবায়িত আশ্রয়ণ প্রকল্প ২৭টি ( আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ২৩টি)। পুনর্বাসিত পরিবারের সংখ্যা ২ হাজার ৯শ’ ৭২জন। মাটির কাজ চলমান আশ্রয়ন প্রকল্পের সংখ্যা ১৬টি। ব্যারাক নির্মাণাধীন আশ্রয়ণ প্রকল্পের সংখ্যা ১১টি। এই ২৭টি আশ্রনয় প্রকল্পে সম্ভাব্য ৭ হাজার ৮শ’ ৭৫টি পরিবারকে পুনর্বাসন করা যাবে। প্রস্তাব প্রেরিত আশ্রয়ণ প্রকল্পের সংখ্যা ৯টি। এর মধ্যে প্রকল্প পরিচালকের নিকট প্রেরিত ৩টি ও জিওসি কুমিল্লা বরাবর প্রেরিত ৩টি।

জেলা গুচ্ছগ্রাম ৩৬টি। এর মধ্যে বাস্তবায়িত ৩৫টি। এর মধ্যে ১টি নদী সিকস্তি ও একটি নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার উপক্রম হয়েছে। নির্মাণাধীন ১টি (চাঁদপুর সদর উপজেলার বাখরপুর গুচ্ছগ্রাম)। পুনর্বাসিত পরিবারের সংখ্যা ১ হাজার ৬শ’ ৫জন। মামলা চলমান একটি ফরিদগঞ্জ উপজেলার কামতা গুচ্ছগ্রাম।

চাঁদপুর জেলায় আদর্শগ্রাম ৩টি (বাস্তবায়িত)। পুনর্বাসিত পরিবারের সংখ্যা ৪৫জন। প্রস্তাবিত আদর্শ গ্রাম নেই।

স্টাফ রিপোর্টর

Leave a Reply

Your email address will not be published.