চাঁদপুরে আজিমিয়া সপ্রাবি’র প্রধান শিক্ষকের রহস্যজনক মৃত্যু

চাঁদপুর শহরের বিষ্ণুদী আজিমিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম (৪৯) এর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। ২৬ জানুয়ারি বুধবার দুপুরে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতাল থেকে ঢাকায় নেয়ার পথে তিনি মৃত্যুরবণ করেন। এর আগে নিজ কর্মস্থল বিদ্যালয় ভবনের তৃতীয় তলা থেকে মুমূর্ষ অস্থায় তাকে উদ্ধার করা হয়।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, মরহুম আব্দুল করিম পাটোয়ারী সড়কস্থ বিষ্ণুদী আজিমিয়া সপ্রাবির প্রধান শিক্ষক মো: রফিকুল ইসলাম প্রতিদিনের ন্যায় বুধবার সকাল ৯টার দিকে বাসা থেকে বের হয়ে কর্মস্থল যান। এরপর দুপুরে পরিবারের পক্ষ থেকে তাঁকে একাধিক বার ফোন করা হলেও অপর প্রান্ত থেকে কোনাে সাড়া না পাওয়ায় যাচ্ছিলো না।

এক পর্যায়ে পরিবারের সদস্যরা তার খোঁজে কর্মস্থল বিদ্যালয়ে ছুটে যান। সেখানে খোঁজাখুঁজির করে বিদ্যালয়ের ৩য় তলার একটি বন্ধ কক্ষ থেকে মুমূর্ষ অবস্থায় প্রধান শিক্ষক মো: রফিকুল ইসলামকে উদ্ধার করা হয়।

নিহত প্রধান শিক্ষক ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি ওই বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। ফরিদগঞ্জ উপজেলার গৃদকালিন্দিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা তিনি। মরদেহের পাশে একটি সুইসাইড নোট ও বিষের বোতল উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা নার্গিস আক্তার ও শিক্ষক আলম জানান, সকালে তিনি বিদ্যালয় আসেন এবং বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আলমের সঙ্গে প্রাতিষ্ঠানিক কাজ করেন। পরে জমি সংক্রান্ত বিষয়ে কেউ একজন তার সঙ্গে কথা বলতে আসবে বলে আলম স্যারকে বিদায় দেন।

এরপর স্বজনরা দ্রুত তাঁকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে কর্মরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য মাে. রফিকুল ইসলামকে ঢাকায় রেফার করেন। পথিমধ্যে তাঁর মৃত্যু হলে পুনরায় তাকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে আনা হয়। পরে কর্মরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। খবর পেয়ে লাশ ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়।

এ বিষয়ে চাঁদপুর সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসিফ মহিউদ্দিন বলেন, আমরা যতটুকু শুনেছি তিনি বিষক্রিয়ায় মারা গেছেন। তবে ময়নাতদন্ত ছাড়া কিছু বলা যাবে। তাঁর শরীরে দড়ি দিয়ে বাঁধার বা লাঠি দিয়ে আঘাত করার কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি। ময়নাতদন্ত শেষে বলা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.