বঙ্গবন্ধু ও জেল হত্যার সঙ্গে সরাসরি জিয়াউর রহমান জড়িত : মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম)

 

স্টাফ রিপোর্টার

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, ‘বিএনপি হলো নালিশি দল।

 

তারা সকাল-বিকাল শুধু পায়ে ধরে। পায়ে ধরার দল হলো এইটা। আর ষড়যন্ত্র করে। মিথ্যা, ষড়যন্ত্র আর

নালিশ হলো তাদের মূল কাজ। জনগণের কাছে তারা যায় না।’

তিনি বলেন, ‘তারা পল্টন ও নয়াপল্টন দুই জায়গায় বসে একই বক্তব্য দিতে থাকে। বলতে থাকে আওয়ামী

লীগকে ধ্বংস করতে হবে। এছাড়া আর কোনো কথা তারা বলে না।’

 

গতকাল সোমবার (২৯ আগস্ট) জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে গণ

আজাদী লীগ সভাটির আয়োজন করে।

জামায়াতে ইসলামীর বিএনপি জোট ছাড়ার প্রসঙ্গে মায়া বলেন, ‘বিএনপিকে তালাক দিয়ে একজন চলে

গেছে। তারা বলে, আগেই আমরা তালাক দিয়ে দিয়েছি। বুঝলেন তো কারা? তাদের নাম আমি মুখে আনতে

 

চাই না।’
তিনি বলেন, ‘আমরা যখন মুক্তিযুদ্ধ করি, তখনই জিয়াউর রহমানরা স্বাধীনতার বিপক্ষে ভেতরে ভেতরে কাজ

 

করছিলেন। তারা পাকিস্তানের এজেন্ট হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে ঘাপটি মারা অবস্থায় ছিলেন। ষড়যন্ত্রে ব্যর্থ হয়ে জিয়াউর রহমানরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ষড়যন্ত্র করে। পরে জাতির পিতাকে

হত্যা করা হয়। এ হত্যার মধ্যে দিয়ে, জিয়াউর রহমান তার হাতকে রক্তে রঞ্জিত করেছেন। এরপরও যখন তারা

দেখল, তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হবে না, তখন তারা জাতীয় চার নেতাকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

ষড়যন্ত্রের মধ্য দিয়ে জেলখানায় জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করে। বঙ্গবন্ধু হত্যা ও জেল হত্যার সঙ্গে সরাসরি

জিয়াউর রহমান জড়িত।’

 

আওয়ামী লীগের এই প্রবীণ নেতা বলেন, ‘শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনা করেছিলেন খালেদা জিয়া ও

তারেক রহমান। দেশের মানুষের দোয়ায় আল্লাহ সেদিন শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়েছিলেন। কিন্তু আইভি

আপাসহ ২২ জনকে সেদিন তারা হত্যা করেছে। জিয়া পরিবার হলো খুনির পরিবার, সন্ত্রাসীর পরিবার।’

‘তাদের হাত বঙ্গবন্ধু, জাতীয় চার নেতা, আইভি আপাসহ অনেকের রক্তে রঞ্জিত। এরা যদি রাজনীতিতে থাকে,

তাহলে দেশকে আবার পেছনে নিয়ে যাবে। জিয়া পরিবারকে রাজনীতি থেকে বিতাড়িত করতে হবে। তাহলে

দেশে গুম, খুন, হত্যা রাজনীতি বন্ধ হবে।’

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.