স্বেচ্ছাসেবীদের বদান্যতায় ছোট্ট শিশুটি ফিরলো স্বাভাবিক জীবনে

 

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি

জীর্ণ শীর্ণ শরীর নিয়ে প্রতিদিন রিকশা নিয়ে বের হন শাহাদাত। দুই ছেলে, স্ত্রী আর পিতাণ্ডমাতা নিয়ে তার সংসার। শরীরের মতো তার সংসারও জীর্ণ শীর্ণ। টেনে-টুনে সংসার চালান।

যে রিকশাটি চালান তাও সমিতি থেকে লোন নিয়ে কেনা। প্রতি সপ্তাহে কিস্তি দেয়া লাগে। নানান টেনশন নিয়েই প্রতিদিন রাস্তায় বের হন। এর মাঝেই ছেলের দুঃসংবাদে যেন আকাশ

ভেঙ্গে পড়ে মাথায়। শাহাদাতের ছোট ছেলে নূরে আলম। বয়স প্রায় দুই বছর। অস্বাভাবিক পুরুষাঙ্গ নিয়ে জন্ম তার। খৎনা করা অবস্থায় জন্ম নেয়া ভাগ্যের ব্যাপার বলে আত্মতৃপ্তিতে

ভুগছিলো তার পরিবার। কিন্তু পুরুষাঙ্গের প্রবহমান রাস্তাটি যে একেবারেই বন্ধ তা খেয়াল করেনি কেউ। শিক্ষা-দীক্ষাহীন পরিবারটি কখনো কারো সহযোগিতাও চায়নি। প্রস্রাব করার

সময় বাচ্চার চিৎকারের ভাষাটুকুও বোঝার চেষ্টা করেনি শাহাদাতের পরিবার। অবশেষে প্রায় দুই বছরের মাথায় টনক নড়ে তাদের। কুসংস্কারকে পদদলিত করে অবশেষে শাহাদাত

দম্পতি চিকিৎসকের কাছে যান। ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত চিকিৎসক জানালেন, তার (নূরে আলমের) প্রস্রাবের স্বাভাবিক রাস্তাটি একেবারেই বন্ধ। পাশেই

সামান্য ছিদ্র দিয়ে প্রস্রাব যায়। তাই কষ্টে সে চিৎকার করে। এটা অপারেশন করে ঠিক করতে হবে। তবে আমাদের এখানে অপারেশনের সুযোগ নেই। ঢাকায় নিয়ে করাতে হবে।

অপারেশনের খরচের কথা শুনে শাহাদাতের মাথায় হাত। দিকশূন্য হয়ে তিনি ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরামে আবেদন করেন। সংগঠনও তার মানবিক আবেদনে সাড়া দিয়ে নূরে

আলমের পুরো চিকিৎসার দায়িত্ব নেয়। সংগঠনের একটি টিম মানুষের দ্বারে দ্বারে যায়। আরেকটি টিম যায় চিকিৎসকদের কাছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ

আশরাফ চৌধুরী আরো দু’জন ডাক্তার নিয়ে আন্তরিকতার সাথে ২য় বার নূরে আলমকে দেখেন এবং লেখক ফোরাম টিমকে সুন্দর পরামর্শ দেন।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিশু ইউরোলজী, কলোরেক্টাল, ভাসকুলার ও নিউরোসার্জারী ডাঃ মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম নূরে আলমকে প্রথম অপারেশন করেন। দুই

বছর পর ২য় এবং শেষ অপারেশন করাবেন। গত ৩ জুন শুক্রবার ফরিদগঞ্জ ডায়াবেটিস হাসপাতালে নূরে আলমের ১ম অপারেশন হয়। বর্তমানে নূরে আলমের চিকিৎসা ডাঃ

মোহাম্মদ মাহবুবুল আলমের তত্ত্বাবধানে চলছে। শিশু নূরে আলম বর্তমানে অনেকটাই ভালো আছে।

বাজারে বাজারে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে চিকিৎসা তহবিল সংগ্রহ করেছেন লেখক ফোরামের এক ঝাঁক নিবেদিতপ্রাণ কর্মী। এদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সময় দেওয়া সংগঠনের

সাংস্কৃতিক সম্পাদক মেহেরাজ হাসান সৌরভ বলেন, পবিত্র রমজানের আগের দিন থেকে আমরা কাজে নেমে পড়ি। সবার দ্বারে দ্বারে গিয়ে নূরে আলম রবিউলের জন্য হাত বাড়িয়ে

দিয়েছি। রোজার মধ্যেও আমরা থেমে থাকিনি। রোজা রেখে সকালে বের হয়ে ইফতারের আগ মুহূর্ত পর্যন্ত কাজ করেছি। হাঁটতে হাঁটতে যখন ক্ষুধা আর পানির পিপাসায় ক্লান্ত হয়ে পড়তাম ঠিক তখনই নূরে আলমের নিষ্পাপ দু’টি কচি চোখ সামনে ভেসে উঠলে আমাদের সমস্ত অবসাদ দূর হয়ে যেত। ভালো লাগছে আমরা নূরে আলমের চিকিৎসা করাতে

পেরেছি।

 

বদান্যতায়

নূরে আলমের বাবা শাহাদাত হোসেন বলেন, আমি ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরামের কাছে কৃতজ্ঞ। তারা আমার পাশে না দাঁড়ালে ছেলের চিকিৎসা করাতে অনেক কষ্ট হতো। আমি তাদের এই উপকারের কথা ভুলবো না। তারা আমাকে কিছুই করতে দেয়নি। চিকিৎসার সব কাজ তারাই করেছে। এমন কি আমার ছেলেকে বিভিন্ন সময় ফলও কিনে দিয়েছে। মাঝে মাঝে আমার সংসারের জন্য নিত্য প্রয়োজনীয় কিছু পণ্যও কিনে দিচ্ছে। আমার ছেলে এখন সুস্থ। সবাই তার জন্য দোয়া করবেন।
নূরে আলমের চিকিৎসা টিমের অন্যতম সদস্য ও লেখক ফোরামের সাবেক সভাপতি কে. এম. নজরুল ইসলাম এ প্রতিনিধিকে বলেন, আমি একজন ব্যবসায়ী মানুষ। ব্যবসার কাজে প্রতিদিনই ব্যস্ত থাকতে হয়। এর মধ্যেও আমি নূরে আলমের চিকিৎসার তহবিল সৃষ্টিতে সময় দিয়েছি। ডাক্তারের কাছেও ছুটে গেছি। সব সময় বন্ধু ফরহাদের সঙ্গে থেকে নূরে আলমের চিকিৎসা করিয়েছি। শিশুটি এখন সুস্থ আছে জেনে ভালো লাগছে।
সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ কাউসার হোসাইন বলেন, একজন অসহায় শিশুর পাশে দাঁড়াতে পেরে ভালো লাগছে।
সভাপতি মোঃ কাওসার আহমেদ বলেন, ফরিদগঞ্জ লেখক ফোরাম প্রতিষ্ঠার পর থেকে সাহিত্য-সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি সামাজিক এবং মানবিক কাজ করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় নূরে আলমের চিকিৎসা হয়েছে। প্রতিষ্ঠাতা নূরুল ইসলাম ফরহাদের নেতৃত্বে ভবিষ্যতেও এমন মানবিক কর্মকাণ্ডে আমরা অংশগ্রহণ করবো।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ আশরাফ চৌধুরী এ প্রতিনিধিকে বলেন, শিশুটি জন্মগতভাবেই লিঙ্গ জটিলতায় ভুগছিল। আমি হাসপাতালের সিনিয়র ডাক্তারদের সঙ্গে নিয়ে শিশুটিকে দেখলাম। তারপর হাসপাতালের সীমাবদ্ধতার কারণে আমরা তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের শিশু ইউরোলজী, কলোরেক্টাল, ভাসকুলার ও নিউরোসার্জারী ডাঃ মোহাম্মদ মাহবুবুল আলমের কাছে পাঠিয়ে দেই। শিশুটি ডাঃ মোহাম্মদ মাহবুবুল আলমের চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে ভালো আছে জেনে ভালো লাগছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.