বাকিলা বাজারে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ পিরানহা মাছ

হাজীগঞ্জ প্রতিনিধি হাজীগঞ্জের বাকিলাবাজারে এভাবেই প্লাস্টিকের বক্সে করে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ পিরানহা। হাজীগঞ্জের গ্রামের হাট-বাজারগুলোতে সামুদ্রিক রূপচাঁদা মাছ বলে প্রকাশ্যে ক্রয়-বিক্রয় হচ্ছে নিষিদ্ধ ও বিষাক্ত পিরানহা। গ্রামের সহজ-সরল মানুষ রুপচাঁদা মাছের কথা বলে চালিয়ে দেয়া হচ্ছে মানব দেহের জন্যে মারাত্মক ক্ষতিকর এই পিরানহাকে। অর্থনৈতিকভাবে অসচ্ছল আর ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে দাম থাকার কারনে কিছু পরিবার না জেনে পিরানহা ক্রয়ে ঝুঁকছে। সোমবার বিকেলে সরজমিনে হাজীগঞ্জের বাকিলা মাছ বাজারে গেলে দেখা মিলে পিরানহার। প্লাস্টিকের ট্রেতে সাজানো এই মাছ খুচরা কেজি দেড়শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিক্রেতা। এই বিক্রেতা আরো জানান, তিনি ৯০ টাকা কেজি দরে পাইকারি দরে কিনে আনেন। আজকের পর আর বিক্রি করবেন না বলে এই প্রতিনিধি জানান এই পিরানহা বিক্রেতা।
জানা যায়, হাজীগঞ্জের হাট-বাজারগুলোতে মূলত রেড বেলি পিরানহা মাছ বেশি পাওয়া যায়। একটি অসাধু চক্র এই মাছ হাজীগঞ্জের হাট-বাজারগুলোতে এনে থাকে। এছাড়া সামুদ্রিক রুপচাঁদা বলে গ্রামে গ্রামে নিয়ে ফেরি করে বিক্রি করে গুটি কয়েক অসাধু মাছ ব্যবসায়ী।
খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, মাংস খেকো কিংবা মাংসাশী মাছ হিসেবে পিরানহা মাছ সাধারণত দুই প্রকার। ব্ল্যাক বেলি পিরানহা (কালো পেটওয়ালা) ও রেড বেলি পিরানহা (লাল পেটওয়ালা)। এ মাছের প্রধান আবাসস্থল মূলত দক্ষিণ আমেরিকা, ব্রাজিলসহ কয়েকটা দেশের নদীতে বসবাস করে। সম্প্রতি সময় দেশে বিভিন্ন পুকুরে স্বল্প পরিসরে আর গোপনে এই মাছ চাষ হয়, মুলত এই পিরানহাগুলোই মফস্বলে বিক্রি হয়ে থাকে। এটি হিংস্র এবং রাক্ষুসে মাছ। মানুষ খেকো মাছ হিসেবে পরিচিত ধারালো দাঁত আর প্রায় মানুষের মতো জিহ্বা থাকার কারণে সে তার শরীরের ১০ গুণ বেশি শক্তিতে কামড় দিতে সক্ষম। পিরানহা মাছের চর্বি মানবদেহে শ্বাস-প্রশ্বাসের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত করে। পিরানহা মাছ খেলে মানসিক সমস্যাসহ মানুষের দেহে নানা রোগের সৃষ্টি করে।
হাজীগঞ্জের গ্রামের হাট-বাজার কিংবা গ্রামে ফেরি করে পিরানহা মাছ বিক্রির বিষয়ে উপজলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাশেদুল ইসলাম জানান, বিষয়টি আমার নজরে ছিলো না, এখন থেকে মনিটরিংয়ের মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.