বাঘে খেলেই ৫ লাখ, বাঙালি পরিচালকের হিন্দি ছবির অবাক করা গল্প

বাংলা তো বটেই, গত বছর থেকে হিন্দিতেও নিয়মিত কাজ করছেন পশ্চিমবঙ্গের নির্মাতা সৃজিত মুখার্জি। নেটফ্লিক্সের আলোচিত ওয়েব সিরিজ ‘রে’র পর চলতি বছর বানিয়েছেন একাধিক হিন্দি ছবি। যার একটি ‘শেরদিল: দ্য পিলভিট সাগা’ মুক্তি পাবে ২৪ জুন। সেই ছবির প্রচারে জন্য আজ সোমবার দুপুরে কলকাতার একটি পাঁচ তারকা হোটেলে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেছিলেন সৃজিত মুখার্জি, যেখানে উপস্থিত ছিলেন ‘শেরদিল’-এর অন্যতম অভিনেতা পঙ্কজ ত্রিপাঠি। এ ছবি নির্মাণের গল্প বলতে গিয়ে অবাক করা এক কাহিনি শোনান সৃজিত। জানান, উত্তর প্রদেশে ঘুরতে গিয়ে কীভাবে ‘শেরদিল’-এর চিত্রনাট্য তাঁর মাথায় আসে।

সৃজিত গিয়েছিলেন উত্তর প্রদেশের পিলভিট জঙ্গলে। পিলভিট উত্তর প্রদেশের একটি জেলা। পাশেই নেপাল। ভারতের অন্যতম এই টাইগার রিজার্ভ বাঘের জন্য খ্যাত। আছে অন্য জীবজন্তুও। সরকারি হিসাবে জঙ্গলে ৬৫টি বাঘ আছে।

পিলভিটের পাশের জেলা শাহজাহানপুরেও রয়েছে বাঘ। এই বাঘকে ‘হাতিয়ার’ করে পিলভিট জঙ্গলের পাশে বাস করা একশ্রেণির স্থানীয় মানুষ সরকারকে ঠকানোর অভিনব এক কৌশল বের করেছেন। সেখানে কোনো প্রবীণ ব্যক্তি মারা গেলে পরিবার–পরিজনেরা তাঁদের মৃতদেহ রেখে আসেন গভীর জঙ্গলে। ওই জঙ্গলের বাঘ বা অন্য জীবজন্তু ওই মৃতদেহ খুবলে খেলেই বাজিমাত। কারণ, কোনো বন্য প্রাণীর আক্রমণে মৃত্যু হলেই সরকারের পক্ষ থেকে মেলে পাঁচ লাখ রুপি ক্ষতিপূরণ। সরকারও জানে মৃতদেহ নিয়ে অর্থ আদায়ের ফন্দির কথা।

বাঘে-খেলেই-৫-লাখ-বাঙালি-পরিচালকের-হিন্দি-ছবির-অবাক-করা-গল্প

সৃজিত বলেন, ‘পিলভিট জঙ্গলের ওই কাহিনি শোনার পর উদ্যোগ নিই একটি ছবি তৈরির। কাহিনিও লিখি। তারপর মুম্বাই ও কলকাতার অভিনেতাদের নিয়ে তৈরি করে ফেলি “শেরদিল”।’

তবে ছবিটি নিয়ে সৃজিত কিছুটা টেনশনে পড়ে যান গত বছর, যখন বিদ্যা বালানের ‘শেরনি’ মুক্তি পায়। ভেবেছিলেন, ওই ছবির সঙ্গে তাঁর ‘শেরদিল’-এর কাহিনি মিলে যাবে। তবে মুক্তির পর বুঝতে পারেন, বৃথাই চিন্তা করছিলেন, ওই ছবির সঙ্গে তাঁর ছবিটির তেমন মিল নেই।
‘শেরদিল’-এ পঙ্কজ ত্রিপাঠি ছাড়াও আছেন নীরাজ কবি, সায়নী গুপ্ত প্রমুখ। বিদ্যা বালান অভিনীত ছবিটিতেও ছিলেন নীরাজ।

‘শেরদিল’-এর অভিনেতা পঙ্কজ ত্রিপাঠি বিহারের মানুষ। শৈশবও কেটেছে বিহারে। বসতবাড়ি বিহারের জঙ্গলমহলেই। তাই জঙ্গলমহলের জীবনে পঙ্কজ শৈশব থেকে জড়িয়ে ছিলেন।

আজ সংবাদ সম্মেলনে পঙ্কজ বলেন, ‘পিলভিট জঙ্গলের জীবনযাত্রা নিয়ে ছবি করতে পেরে আমারও ভালো লেগেছে। আরও ভালো লাগবে যদি কলকাতার চলচ্চিত্রপ্রেমীরা ছবিটি গ্রহণ করেন।’
প্রয়াত বলিউড সংগীতশিল্পী কে কের জীবনের শেষ গানটিও রয়েছে ছবিটিতে। ‘শেরদিল’-এর শুটিং হয়েছে পশ্চিমবঙ্গের ডুয়ার্স জঙ্গলে। ‘শেরদিল’-এর পর সৃজিতের আরেকটি হিন্দি ছবি ‘শাবাশ মিঠু’ মুক্তি পাবে ১৫ জুলাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *