তারেক রহমানকে নিয়ে কটোক্তির প্রতিবাদে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ

তারেক রহমানকে নিয়ে কটোক্তির প্রতিবাদে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ

মুহাম্মদ বাদশা ভূঁইয়া

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মান্নাফীর বক্তব্যেকে ধৃষ্টতাপূর্ণ উল্লেখ করে চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে।

বুধবার ২০ জুলাই বিকেল ৪ টায় চাঁদপুর স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃবৃন্দ শহরে বিক্ষোভ মিছিল করে পরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের সভাপতি হযরত আলীর ঢালীর সভাপতিত্বে যুগ্ম আহ্ববায়ক মেরাজ আহমেদ চোকদার এর পরিচালন স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃবৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, জেলা

সেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক মাসুদ মাঝি, খোকন মিয়াজি, সন্মানিত সদস্য ফজলুর রহমান, পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক ওসমান খান, আবু সুফিয়ান মিয়াজী, জেলা সদস্য জাকির

হোসেন, মেহেদী হাসান, আকাশ সরকার, দেলোয়ার হোসেন, মাসুদ বেপারী, আক্তার হোসেন, আব্দুল হালিম, ১নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদ সোহাগ ৩নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি কাউসার

আহমেদ, ৭নং ওয়ার্ডের সভাপতি শাহ আলম চোকদার, সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, ৮নং ওয়ার্ডের সভাপতি জসিম পাটোয়ার, ৯নং ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদক রাশেদ মাঝি, ১০নং ওয়ার্ডের

সভাপতি মাহফুজ,১১নং ওয়ার্ড সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মিরাজ তালুকদার কল্যাণপুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি আতিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক রাশেদ, লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন

স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফ শেখ, ১৩নং হানারচর ইউনিয়নের সভাপতি ইউসুফ গাজী, সাধারণ সম্পাদক সবুজ বেপারী, শাহ মামুর পুর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা নুর আলম,বিভিন্ন পর্যায়ের শতাধিক নেতা-কর্মী উপস্থিত ছিলেন।
বিক্ষোভ মিছিলে বক্তারা বলেন, শিষ্টাচার আওয়ামী লীগের মধ্যে জন্মলগ্ন থেকেই অনুপস্থিত। মান্নাফী যদি তাঁর ধৃষ্টতাপূর্ণ বক্তব্যে প্রত্যাহার না করে, দেশবাসী এবং দেশনায়ক তারেক রহমান মহোদয়ের

কাছে ক্ষমা না চান তাহলে বাংলাদেশে জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দল চাঁদপুর এর জবাব রাজপথে দেবে।

জানা যায়, রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের এক সভায় মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফী বলেন, ‘তারেক জিয়া একজন কুলাঙ্গার। সে বিদেশে বসে বঙ্গবন্ধুর নাম ধরে কথা বলে। শেখ মুজিব বলার ধৃষ্টতা

দেখায়। তাকে কোনদিন দেশে আসতে দেওয়া হবে না। আর যদি আসে, আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা তাঁর জিভ কর্তন করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *