বৈশাখ রাঙাতে ‘মিষ্টি কিছু’র মধ্যে ভূতের ভয়

পয়লা বৈশাখে রমনা বটমূলে বর্ষবরণ, চারুকলা অনুষদে মঙ্গল শোভাযাত্রা, গ্রামীণ মেলা, লোকজ খেলাধুলা, নৃত্য-সংগীতসহ নানা আয়োজন চিরচেনা বাঙালির উৎসবকে রাঙিয়ে তোলে। কেমন হয়, যদি বছরের পর বছর চলে আসা প্রচলিত এসব আয়োজনের সঙ্গে রাতে যোগ হয় `মিষ্টি কিছু?’ আর এই `মিষ্টি কিছু’র মধ্যে যদি থাকে ভয়ে ভরা রোমাঞ্চকর থ্রিলার? আর মনে করিয়ে দেয় শৈশবে শোনা ভূতের রহস্যময় গল্প, তাহলে? এককথায় বৈশাখের এই মিষ্টি কিছুর জন্য তৈরি হওয়ার পালা। এবার এই মিষ্টি কিছুর পরিচয় দেওয়া যাক। ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম চরকি বৈশাখীর বিশেষ আয়োজনে নিয়ে আসছে অ্যানথোলজি সিরিজ ষ। এই সিরিজের দ্বিতীয় পর্বের নাম মিষ্টি কিছু।

কী আছে মিষ্টি কিছুতে? সেটা আঁচ দেওয়া আছে ট্রেলারে। ১০ সেকেন্ডের এই ঘটনা আগ্রহ বাড়িয়ে তোলে। একটি মিষ্টির দোকান। হঠাৎ বন্ধ করা দরজা খুলে যায়। ভয়–উৎকণ্ঠা নিয়ে মাহমুদ জিজ্ঞেস করে, ‘কে?’ বলেই ভয়ে জড়সড় মাহমুদ। নিশ্চুপ রাতের বাতিতে ভয়ে চারপাশে তাকায়। হঠাৎ পাশ থেকে রহস্যময় শব্দ ভেসে আসে, ‘ভয় পাচ্ছ?’ মাথায় বড় চুল ও সাদা দাঁড়ি–গোঁফে, হাসিমুখে কথা বলা মানুষটি গুণী অভিনেতা আফজাল হোসেন। তাঁর চাহনি এবং হাসিমুখে সংলাপ ‘মিষ্টি হবে’ যেন রহস্য আরও বাড়িয়ে তোলে। আর ‘কে’ বলা লোকটি অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। দুই প্রজন্মের গুণী দুই অভিনেতাকে প্রথমবার দেখা যাবে ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম চরকির ভৌতিক গল্পে।

তিনি সদ্য মিষ্টির দোকানে চাকরি পাওয়া নিরাশ, সংসারি ভদ্রলোক। যার সঙ্গে নিশাচর ক্রেতার পরিচয় হয়। সেই ক্রেতার অদ্ভুত ক্ষমতা দেখে অবাক হয় মাহমুদ। এই চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী। মজার ব্যাপার হচ্ছে, দীর্ঘদিন ধরেই তাঁর পরিচয় আফজাল হোসেনের সঙ্গে। কিন্তু কখনোই একসঙ্গে অভিনয়টা করা হয়ে ওঠেনি। এই অভিনেতা বলেন, ‘আফজাল ভাইয়ের সঙ্গে প্রথমবার ফ্রেম শেয়ার করার আনন্দ কথায় বর্ণনা করে বোঝানো কঠিন। আফজাল ভাই প্রিয় একজন মানুষ, সেই সঙ্গে প্রিয় অভিনেতা। তাঁর সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতাটাও ছিল দারুণ। আর মিষ্টি কিছুতে দর্শক নতুন স্বাদের গল্প পাবে।’

ষ সিরিজের প্রথম পর্বের এই বিল্ডিং–এ মেয়ে নিষেধ গত সপ্তাহে প্রচার হয়েছে। সোহেল মণ্ডল ও শিরিন শিলা অভিনীত সাসপেন্স আর রহস্যঘেরা পর্বটির দারুণ সাড়া পেয়ে খুশি পরিচালক নুহাশ হুমায়ূন। তিনি বলেন, ‘কিছু বাংলা ভূতের গল্প আছে, আমাদের সবার শোনা। মাছ রাঁধলে পেত্নী আসে, মিষ্টির দোকানে রাতে জিন আসে, নিশির ডাক শুনতে নেই, খোলা চুলে সন্ধ্যায় বের হতে নেই—এসব ক্ল্যাসিক বাংলা ভূতের গল্প কিন্তু আমাদের ঐতিহ্য। এক প্রজন্ম থেকে আরেক প্রজন্মের অলিখিত গল্প। এই গল্পগুলোকে এক স্ক্রিনে আনার সময় এসেছে। আশা করছি, আমাদের মিষ্টি কিছু দর্শকদের ভালো লাগবে।’

 বৈশাখ-রাঙাতে-‘মিষ্টি-কিছুর-মধ্যে-ভূতের-ভয়

ভূতের এই ভিন্ন ধরনের গল্পটির দ্বিতীয় পর্ব মিষ্টি কিছুতে অভিনয় করে বেশ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করলেন অভিনেতা আফজাল হোসেন। তিনি বলেন, ‘পেট কাটা ষতে যে গল্পগুলো ব্যবহার করা হয়েছে, সেগুলো কমবেশি আমাদের সবার শোনা। কিন্তু গল্পগুলো যেভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে, তার ধরন একদম নতুন। নুহাশের মতো তরুণ এক যুবক এমন অসাধারণ কনটেন্ট নিয়ে কাজ করেছে, সে জন্য তাকে সাধুবাদ জানাই। সেই সঙ্গে চরকিকে ধন্যবাদ এমন অভিনব প্লটের গল্প দর্শকদের দেখানোর সুযোগ করার কারণে। আর হ্যাঁ, মিষ্টি কিছু কিন্তু মোটেও মিষ্টি নয়।’

১২ মাসে ১২টি ওয়েব সিরিজ ও ১২টি ওয়েব ফিল্ম দিয়ে সাজানো হয়েছে চরকির বিশেষ সব আয়োজন। প্রচারের পর থেকে অল্প সময়েই এটি দর্শকদের কাছে বাংলা ভাষার বিনোদনের ১ নম্বর প্ল্যাটফর্ম। চরকির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি বলেন, ‘চরকি সব সময় চেষ্টা করে দর্শকদের মৌলিক ও ভিন্ন কনটেন্ট উপহার দেওয়ার। সেই ধারাবাহিকতায় এবার ভৌতিক বা হরর কনটেন্ট নিয়ে আসছে চরকি। আশা করছি, ষ সিরিজের দ্বিতীয় গল্প দেখে দর্শক হতাশ হবেন না।’ দারাজ নিবেদিত চরকির অ্যানথোলজি সিরিজের দ্বিতীয় পর্ব মিষ্টি কিছু আজ ১৪ এপ্রিল রাত ১০টা ৫৯ মিনিটে প্রচার হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.