ভালো মানুষ হতে হলে বই পড়ার বিকল্প নেই

কাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জুয়েল

একখানা ভালো বই আপনার মধ্যে তৈরি করবে একটি গাঢ় অনুভূতি, যার নাম মানবিকতা। অভিভাবক, শিক্ষকদের কাছে আকুল আবেদন থাকবে শিশুদের হাতে বই তুলে দিন। কিš‘ এর আগে অভিভাবকরা নিজেকেও একটু জাগ্রত করুন, সংযত করুন অন্য কোনো ডিভাইস ব্যবহার থেকে। আপনার হাতের একটি বই সন্তান এবং পরিবারের অন্য সদস্যদের উৎসাহিত করতে পারে বই পড়ার জন্য। আজ আমার এ কথাগুলো হাস্যকর ও উপদেশমূলক মনে হতে পারে কিন্তু ভবিষ্যতে সন্তানের কাছ থেকে সামান্য ভালোবাসা পেতে চাইলে এবং বৃদ্ধাশ্রমে না যেতে চাইলে নিজেকে সংযত করে বইয়ের প্রতি আকর্ষণ তৈরি করুন, সেই সঙ্গে সন্তানকেও। এখন চলছে বইমেলা, শিশুদের জন্য রয়েছে নানা রঙের বই। যা দিয়ে শিশুদের কোমল মন শিখতে পারে, জানতে পারে, বুঝতে পারে সম্পূর্ণ এ পৃথিবীকে, সেই সঙ্গে তার বাবা-মা-ভাই-বোন ও পরিবারের অন্য সদস্যদের। শিশুদের কোমল মনে শিক্ষণীয় গল্প, কবিতা ছাপ ফেলে দেয়। আবেগপ্রবণ করে শিশুদের। আবেগপ্রবণ একজন শিশু কখনই বাবা-মাকে অসম্মান করতে পারে না।

এ ক্ষেত্রে করোনাকালীন এই দুর্যোগের সময়, এর পর শিক্ষকদের একটি বড় ভূমিকা রাখতে হবে। ছাত্রছাত্রীরা শিক্ষকদের সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়ে থাকে। তাই বিদ্যালয়ের শিশুদের পাঠদানের মাধ্যমে বই পড়ায় উৎসাহিত করতে হবে। আজ সময় এসেছে সামাজিক, নাগরিক ও জাতীয় জীবনে মানবিক মূল্যবোধগুলোকে জাগিয়ে আত্মসচেতন করে তোলার। মানুষের চিন্তা-ভাবনা ও চেতনার মধ্যে নম্রতা ও দায়িত্ববোধ জাগিয়ে তোলার। প্রকৃত সংস্কৃতিচর্চা এবং সাংস্কৃতিক কর্মকা-, যা আমাদের নৈতিক ও সামাজিক অবক্ষয়কে দূর করে জাতিকে নতুন যুগের পথ দেখাতে পারে। আর সেজন্য আমাদের মানসিকতা গড়ে তোলার জন্য বই পড়তে হবে। বই পড়ে মননের উন্নতি ও মানবিকতার বিকাশ ঘটাতে হবে। বই পড়া ছাড়া কোনোভাবেই মানবিক মানুষ ও সমাজ পরিবর্তন করা যাবে না।

বই ও গাছ একই চরিত্র। নীরবে মানবজাতির উপকার করে। সাধারণের চোখে এ উপকার হয়তো চোখে পড়ে না, কিš‘ বই ও বৃক্ষ দুজনেই আমাদের স্বর্গীয় কোনো পথের দিকে নিয়ে যায়। বর্তমান ও ভবিষ্যৎ সুন্দর করার জন্য সন্তানের হাতে বই তুলে দিন। সেই সন্তান ভবিষ্যতের জন্য একটি ভালোবাসার সঞ্চয় হবে, আপনার জীবনকে করে তুলবে সহনশীল ও মানবিক।

Leave a Reply

Your email address will not be published.