ভোজ্য তেলে ৮ টাকা বাড়াতে চান ব্যবসায়ীরা

আমদানি ব্যয় বৃদ্ধির কারণ দেখিয়ে সয়াবিন তেলের দাম লিটারে ৮ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশন। এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারি) তাদের সঙ্গে বৈঠকে বসবে বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ট্যারিফ কমিশন।

জানা গেছে, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সম্প্রতি তেলের দাম বাড়ানোর বিষয়ে চিঠি পাঠায় বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনারস অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফেকচারার অ্যাসোসিয়েশন। একই সঙ্গে পাম তেলের দাম বাড়ানোরও দাবি জানিয়েছেন তারা। চিঠিতে আগামী ৮ জানুয়ারি থেকে দাম বাড়ানোর বিষয়ে জানানো হয়। এরই প্রেক্ষিতে বাণিজ্য মন্ত্রণলায় বিষয়টি যাচাই বাছাইয়ের জন্য ট্যারিফ কমিশনে পাঠায়। তারা এটি নিয়ে কাল রিফাইনারস অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে বৈঠকে বসছে।

বর্তমানে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকায়। ৮ টাকা দাম বাড়িয়ে ১৬৮ টাকা দাম নির্ধারণের দাবি জানানো হয় চিঠিতে।

এ বিষয়ে শীর্ষস্থানীয় ভোজ্যতেল বিপণনকারী সিটি গ্রুপের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা জাগো নিউজকে বলেন, আমরা আগেই তেলের দাম বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়ে রেখেছিলাম বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে। সেটির বিষয়ে কাল তিনটায় ট্যারিফ কমিশন বৈঠক ডেকেছে। আমরা মূলত ১২টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছিলাম, সেটি তারা ৮ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে। কালকের বৈঠকের পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আমদানি ও অভ্যন্তরীণ বাণিজ্য (আইআইটি) অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব এ এইচ এম সফিকুজ্জামান জাগো নিউজকে বলেন, তেলের দাম বাড়ানোর বিষয়ে একটা প্রস্তাব দিয়েছিলেন রিফাইনারিরা। আমরা এটা নিয়ে এনালাইসিস করে ট্যারিফ কমিশনে পাঠিয়েছি। তারা যাচাই-বাছাই করে জাতীয় কমিটিকে জানাবে, সেই কমিটি দাম নির্ধারণ করবে। ব্যবসায়ীরা প্রথমে ১২ টাকা বাড়ানো প্রস্তাব দেন। পরে তা কমিয়ে ৮ টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব দেন। বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে ট্যারিফ কমিশন বৈঠকে বসবে, তারপর আমাদের কাছে আসবে।

সময় ডেস্ক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *