মজুদ্দারের বিরুদ্ধে সরকার তৎপর রয়েছে : পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী

আশিক বিন রহিম: চাঁদপুর উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির আয়োজনে উদ্যমী নারী এসএমই মেলার সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৬ মার্চ বুধবার দুপুরে শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন
পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।
তিনি বলেন, বর্তমান সরকার নারীর ক্ষমতায়ন ও উন্নয়নে অনেক সুযোগ সুবিধা তৈরী করেছেন। আমাদের দেশে মাধ্যমিক ও উ”চ মাধ্যমিক পর্যায়ে ছাত্রীর সংখ্যা বেশী। এটি একটি বিরাট অর্জন। কোন মুসলিম দেশে প্রাথমিক ও মাধ্যমিকে নারীরা এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশ ব্যাতিক্রম। ছাত্রের তুলনায় ছাত্রী সংখ্যা বেশী। এর মূল কারণ হচ্ছে শিশু বৃত্তি, উপবৃত্তি, বিনামূল্যে বই এবং মেয়েদের জন্য বিশেষ সুযোগ সুবিধা দেয়া। বিশেষ করে প্রাইমারি স্কুলে মিড ডে মিল চালু করা। এসব কারণে বিদ্যালয়ের ভর্তির হার বেড়েছে। একই সাথে মানুষের আয়ও বেড়েছে। সরকারের বিশেষ আয়োজনে এটি সম্ভব হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, আপনারা জানেন এই সরকারের আমলে কর্মক্ষম নারী অর্থাৎ ১৮ থেকে ৫৯ বছর বয়স পর্যন্ত নারীরা আমাদের দেশে ৩৬.৩ শতাংশ কর্মে নিয়োজিত। এটি দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে বেশী। এই সংখ্যায় ভারতে আমাদের চাইতে কম, পাকিস্তানে খুবই কম। এই যে নারীদের কর্মে নিয়োজিত করা, এটি সরকারের পরিকল্পনার মাধ্যমে হয়েছে। আমরা এটাকে ৪০ শতাংশে উন্নিত করতে চাচ্ছি। প্রশাসনেও ২০% নারীরা রয়েছেন। আমাদের প্রধানমন্ত্রী নারী, স্পীকার নারী, বিরোধী দলীয় নেত্রী নারী ও অন্যান্য পদেও নারীরা রয়েছেন। সরকারের যে বাজেট হয়, সেখানে নারীদের উন্নয়ন ও অগ্রগতির জন্য বর্তমানে ৩৩% অর্থ ব্যয় হয়।
তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর প্রথমেই বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা চালু করেছিলেন। নারীদের জন্য তিনি সবক্ষেত্রে সুযোগ সুবিধা দিয়েছেন। মাতৃত্বকালীন ভাতা দেয়ার মানে হচ্ছে একজন শিশু যেন সুস্থাভাবে জন্মগ্রহন করতে পারে। এক্ষেত্রে সরকার এনজিও গুলোকে কাজ করার অনেক সুযোগ করে দিয়েছেন। বিশেষ করে নারীদের নেতৃত্বে থাকা এনজিওগুলোকে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, আপনারা এসএমই ফাউন্ডেশনের কথা শুনেছেন। সেখানে বিভিন্ন ব্যাংকগুলো থেকে .৫ শতাংশ সুদে নারী উদ্যোক্তাদের টাকা দেয়া হচ্ছে জামানত বিহীন। এর জন্য সরকার ৩শ’ কোটি টাকা রেখেছেন। নিজে উদ্যোগ নিয়ে বিনিয়োগ করে ব্যবসা চালু করাই হচ্ছে উদ্যোক্তা। আমাদের প্রচুর পরিমান উদ্যোক্তা হওয়ার সুযোগ রয়েছে। শিক্ষায় মাধ্যমিক পর্যায়ে নারীরা এগিয়ে এসেছে। উ”চ শিক্ষায় নারীদের অংশগ্রহণ আরো বাড়াতে হবে।
নারী উদ্যোক্তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমাদের এখন বেশী প্রয়োজন শিশু ডে কেয়ার সেন্টার তৈরী করা। কারণ বেশীরভাগ পরিবারে এখন পিতা-মাতা উভয় চাকরী করেন। হস্তশিল্প নিয়ে এগিয়ে আসতে পারেন। এটার জন্য আপনারা ব্যাংকগুলো থেকে বিশেষ ঋণ পেতে পারেন। পর্যটন ক্ষেত্রে এগিয়ে আসা এবং এই বিষয়ে পড়াশুনা করার জন্য উৎসাহ দেয়া দরকার। প্রথমেই শিল্পখাতে যাওয়া ঝুঁকি আছে। তাই ছোট ছোট কাজগুলোতে এগিয়ে আসতে পারেন।
তিনি বলেন, আন্তর্জাতিকভাবে সংস্থাা আছে কোন দেশের নারীরা কতটা ক্ষমতায়িত। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশে ১৬৩ দেশের মধ্যে ৫০তম দেশ। আমাদের পিছনে ভারত। পাকিস্তানত আরো পিছনে। এই সূচকটা আমাদের আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হয়েছে।
সেমিনারে মূলপ্রবন্ধ পাঠ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর সহযোগী অধ্যাপক ড. রফিউদ্দিন আহমেদ।
চাঁদপুর উইমেন চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র প্রেসিডেন্ট মনিরা আক্তারের সভাপতিত্বে ও সদস্য কবিতা সাহার সঞ্চালনায় আলোচকদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট সাংবাদিক নেতা, ঢাকা ক্রাইম রিপোটার্স ইউনিটি’র সভাপতি ও দৈনিক আমাদের সময়ের উপ-সম্পাদক মিজান মালিক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. ইমতিয়াজ হোসেন, পৌরসভার মেয়র মো. জিল্লুর রহমান, প্রেসক্লাবের সভাপতি গিয়াস উদ্দিন মিলন, সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার ইয়াসির আরাফাত, শিল্পচূড়া সাংস্কৃতিক সংগঠন এর সভাপতি মাহবুবুর রহমান সেলিম প্রমূখ।
এছাড়া নারী উদ্যোক্তাদের মধ্য থেকেও বক্তব্য রাখেন ফজিলতুন্নেছা আবু, শারমিন আক্তার জুঁই ও নাজমা আলম।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলমসহ সকলকে দু’টো করে বই দেয়া হয়। বইগুলো ছিল- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা ‘আমার দেখা নয়া চীন’ এবং চাঁদপুরের তরুণ লেখক আশিক বিন রহিমের লেখা ‘চাঁদপুরের চাঁদমুখ।’ দু’টি গুরুত্বপূর্ণ বই হাতে পেয়ে অতিথিরা আনন্দ প্রকাশ করেন। পাশাপাশি আয়োজন স্থালে উপস্থিাত সকলেই এই নতুন চিন্তাকে সাধুবাদ জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.