মতলব দক্ষিণে নবাব মিয়ার দেশী পশু-পাখির খামার

মতলব দক্ষিণে কয়েক প্রকার পশুপালনের মাধ্যমে নবাব মিয়া প্রকৃতিবান্ধব ফার্মিং কার্যক্রমের মাধ্যমে আল্লাহর দৃষ্টি’খামার গড়ে তুলেছেন। এলাকাবাসী ও সচেতন মহল তার উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে।

মতলব পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের নবকলস গ্রামে মোঃ নবাব মিয়া সরকারি চাকরী থেকে অবসর গ্রহণ করে বেকারত্ব দূরীকরণের লক্ষ্যে নিজ উদ্যোগে শখ থেকে গড়ে তুলেছেন বিভিন্ন পশুপাখি প্রতিপালনের খামার। খামারের নাম দিয়েছেন আল্লাহর দৃষ্টি খামার।
জানা যায়, তিনি ইউটিউব, ইন্টারনেট, উপজেলা প্রাণি সম্পদ ও কৃষি অফিস থেকে প্রযুক্তিগত কলাকৌশল আয়ত্ত করে ফার্মিং কার্যক্রমে এগিয়ে যাচ্ছেন আপন গতিতে।

দেশের বিভিন্ন জায়াগার খামার নিজে পরিদর্শন করে উন্নত জাতের পশুপাখি সংগ্রহ করাই তার মূল লক্ষ্য। বর্তমানে তার খামারে নানা জাতের পশুপাখি রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে- ৪০ জোড়া তিতি পাখি, ২৫ পিস চায়না হাঁস, ৫ জোড়া কবুতর, ১ জোড়া ঘুঘু পাখি, ৫ পিস প্রাপ্ত বয়স্ক দেশি মুরগী, ২জোড়া বাজিগর পাখি, বড় ও ছোট বাচ্চাসহ ১৫ পিস খরগোশ, ২ জোড়া গিনিপিকের ছোট বাচ্চা।

বিশেষ আকর্ষণ হিসেবে ফার্মে রয়েছে ১ জোড়া কালিম পাখি। প্রাপ্তবয়স্ক এক জোড়া কালিম পাখির মূল্য স্বাভাবিক ভাবে ৯ থেকে ১০ হাজার টাকা হবে বলে তিনি জানান।

চলতি বছরের মার্চ মাসে মোঃ নবাব মিয়া সব মিলিয়ে ফার্মে ২লক্ষ ৫০ হাজার টাকা বিনিয়োগ করেন এ খামারে। ৬শ’ স্কয়ার ফিটের একটি শেড তৈরি করেছেন। এপর্যন্ত পশুপাখি লালন পালনে দৈনিক তার ব্যয় হচ্ছে সব মিলিয়ে ৮শ’ টাকার মত। প্রতি মাসে প্রায় ৩০ হাজার টাকার মত খরচ হচ্ছে।

এখনো আয়ের সুযোগ তৈরি হয়নি। বেশ কিছু পশুপাখি সম্প্রতি বিক্রয়যোগ্য হয়ে এসেছে। ইতিমধ্যেই পশুপাখির মধ্যে রোগ প্রতিরোধক ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয়েছে। মানুষের প্রয়োজনে প্রাপ্ত বয়স্ক পশুপাখি কেজি বা পিস হিসেবে বিক্রি করে আয়ের সুযোগ সৃস্টি করার ইচ্ছা রয়েছে নবাব মিয়ার।

পশুপাখি প্রতিপালনে খামারে দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় রয়েছে সবুজ শাক-সবজি, উন্নত জাতের ঘাস ও বিভিন্ন ধরনের দানাদার খাবার।

নবাব মিয়ার বয়স এখন ৬০ ছুঁই ছুঁই। তার পিতার নাম- মৃত- আবু বক্কর সিদ্দিক খাকী। এই বয়সে তার সৃজনশীল কার্যক্রম সত্যিই প্রশংসা পাওয়ার যোগ্য ও দাবিদার বলে এলাকাবাসীর মন্তব্য। তিনি ১৯৮৭ সালে সরকারি চাকুরীতে যোগদান করেন। তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দপ্তর মতলব দক্ষিণে গাড়ী চালক হিসেবে ৩২ বছর নিযুক্ত ছিলেন। ২০২১ সালে তিনি সরকারি চাকুরী থেকে অবসরে আসেন।

স্টাফ রিপোর্টার

Leave a Reply

Your email address will not be published.