মতলব, শাহরাস্তি ও ফরিদগঞ্জের ১৪ হাসপাতাল সিলগালা ও জরিমানা

শাহরাস্তি/ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য প্রশাসন অভিযান চালিয়ে নিবন্ধন না থাকায় শাহরাস্তি উপজেলায় দুইটি হাসপাতাল ও দুইটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার সিলগালা করেছে উপজেলা স্বাস্থ্য প্রশাসন। ২৯ মে রোববার বিকেলে শাহরাস্তি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ নাসির উদ্দিন ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আমজাদ হোসেনের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে উপজেলার উয়ারুক, শাহরাস্তি গেইট দোয়াভাংগা ও কালিবাড়ীতে অবস্থিত ৪টি প্রতিষ্ঠানে সিলগালা করা হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ নাসির উদ্দিন জানান, নিবন্ধন না থাকায় স্বাস্হ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এতে মেহের কালীবাড়ি বাজারে অবস্থিত মা ও শিশু হাসপাতাল, মা ও শিশু ডায়াগনস্টিক সেন্টার, শাহরাস্তি গেইট দোয়াভাংগায় নিউ এ্যপোলো ডায়াগনস্টিক সেন্টার, উয়ারুক বাজারে অবস্থিত কেয়ার হসপিটাল এন্ড ট্রমা সেন্টার সিলগালা করা হয়। তিনি জানান, নিবন্ধন বিহীন প্রতিষ্ঠান গুলোর বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।
চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে ২ টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে নিবন্ধন না থাকায় বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় ওই ২টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে আদালত।
ফরিদগঞ্জ উপজেলা
সারাদেশের ন্যায় অনিবন্ধিত ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে সরকার নির্দেশিত হয়ে একটি মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয়। ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট তাসলিমুন নেছা পরিচালিত মোবাইল কোর্টের অভিযানে ফরিদগঞ্জ বাজারের কলা বাগান মার্কেটের আল হেলাল হার্ট এন্ড মেডিকেল সেন্টার ও রুপসা ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে নিবন্ধন না করা পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশ প্রদান করেন।
এ ছাড়া গুপ্টি পশ্চিম ইউনিয়নের খাজুরিয়া বাজারের লাইফ কেয়ার ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও মেডিফাষ্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টারের লোকজন মোবাইল কোর্টের সংবাদ পেয়ে ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করে পালিয়ে যায়।
এ সময় ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. কামরুল হাছান ছাড়াও থানা পুলিশ, আনসার সদস্যরা কোর্টকে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেন।
ফরিদগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাসলিমুন নেছা বলেন, নিবন্ধন না থাকায় ২টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে আমরা ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছি এবং নিবন্ধন না করা পর্যন্ত তা বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছি। এছাড়াও খাজুরিয়া বাজারের ২টি ডায়াগনস্টিক সেন্টারের লোকজন আমাদের আসার খবর পেয়ে ডায়াগনস্টিক সেন্টার ২টি বন্ধ করে পালিয়ে যায়। আমরা তাদের পর্যবেক্ষণে রেখেছি। আমাদের এ অভিযান অব্যাহত থাকবে।
মতলব দক্ষিণ
চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণে উপজেলা স্বাস্থ বিভাগ ৮টি ডায়গনস্টিক সেন্টারের বৈধ কাগজপত্র না থাকায় বন্ধ ঘোষণা করেছে।
রবিবার (২৯ মে) স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষ বরাবর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নুসরাত জাহান মিথেন স্বাক্ষরিত বন্ধের আদেশকৃত পত্র প্রেরণ করেছেন।
প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে : ডিজিটাল ল্যাব এন্ড ইমাজিং সেন্টার (নারায়ণপুর বাজার), ইনসাফ কম্পিউটারইজড ডায়গনস্টিক সেন্টার (নায়েরগাঁও বাজার), নুসরাত হাসপাতাল এন্ড ডিজিটাল ডায়গনস্টিক সেন্টার (নায়েরগাঁও বাজার), গ্রীন লাইফ জেনারেল হাসপাতাল প্রাঃ এন্ড ডিজিটাল ডায়গনস্টিক সেন্টার (নারায়নপুর বাজার), ম্যাস্ক ভিআইপি হাসপাতাল প্রাঃ এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার (নারায়ণপুর বাজার), পপুলার ডিজিটাল ডায়গনস্টিক সেন্টার (নারায়ণপুর বাজার), গীতা ইউনিক প্যাথলজি (নারায়ণপুর বাজার) ও নায়েরগাঁও পৃথীবি হসপিটাল এন্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ নুসরাত জাহান মিথেন গনমাধ্যমকে বলেন, মতলব দক্ষিণের ৮টি প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র না থাকায় পরবর্তী নিদের্শ না দেয়া পর্যন্ত তাদের স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। অন্যথায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *