লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

স্টাফ রিপোটার চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০নং লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা ক্রমশঃ ফুসে উঠছে। তাদের প্রিয় নেতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি সেলিম খানকে চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক তথাকথিত বহিষ্কার অবিলম্বে প্রত্যাহার না করা হলে তীব্র আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছে লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নবাসী। শুধু তাই নয়, আগামী বৃহস্পতিবারের মধ্যে অসাংগঠনিক ও অগঠনতান্ত্রিক এবং ফেইসবুকের মাধ্যমে ঘোষিত ও হাস্যকর আজীবন বহিষ্কারের বিষয়টি সমাধান না হলে, বিক্ষোভ সমাবেশে অংশগ্রহণকারী হাজার হাজার নেতা-কর্মী তীব্র আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছে। প্রয়োজনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার কাছে যেতেও তারা দ্বিধাবোধ করবে না। সমাবেশে বক্তারা বলেন, ১০নং লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়নটি চাঁদপুর সদর উপজেলার আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের ভোটব্যাংক হিসেবে সর্বাধিক পরিচিত। সেই ভোটব্যাংকের দাবিদার ও রূপকার এ ইউনিয়নের সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সেলিম খান। তার বিকল্প হিসেবে তৃণমূলে আদৌ কোনো নেতা সৃষ্টি হয়নি। সুতরাং, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সম্পূর্ণভাবে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ঘোষণাপত্র ও গঠনতন্ত্রকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে তাদের হীন স্বার্থে ইউনিয়ন সভাপতি মোঃ সেলিম খানকে আজীবন বহিষ্কারের যে ঘোষণা দিয়েছে, তা ১০নং লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও মহিলা আওয়ামী লীগসহ ইউনিয়নবাসী প্রত্যাখান করেছে। এ সমাবেশে বক্তারা আরো বলেন, মূলতঃ ১০নং লক্ষ্মীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের তথা নৌকার ঘাটি। সেই ঘাটিতে কোনো এক অদৃশ্য শক্তির ছত্রছায়ায় নৌকার ভোটব্যাংক হিসেবে খ্যাত ১০নং লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নে বিএনপি-জামাতের নীলনকশা বাস্তবায়নের লক্ষে জেলা আওয়ামী লীগ মরিয়া হয়ে উঠেছে। কিন্তু, ইউনিয়নের জনগণ তথা আওয়ামী পরিবারের নেতা-কর্মীরা তাদের জীবন থাকতে জেলা আওয়ামী লীগের এ নীলনকশা বাস্তবায়ন করতে দেবে না।
গতকাল ৬ জুন সোমবার বিকেল ৪ টায় চাঁদপুর সদর উপজেলার ১০নং লক্ষ্মীপুর মডেল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের যৌথ উদ্যোগে আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ সেলিম খানকে বহিষ্কারের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বহরিয়া বাজারে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ইউনুস শেখ। সাধারণ সম্পাদক আরশাদ মিজির সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সায়েদ আলী আখন, হারুনুর রশিদ, ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক জহির উদ্দিন হাওলাদার, যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক মাঝি, শাহ আলম মাঝি, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক বোরহান উদ্দিন খান টেলু, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা খোকন রাঢ়ী, ১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি দুলাল বেপারী ও সাধারন সম্পাদক হেলাল গাজী, ২নং ওয়ার্ড সভাপতি মনির শেখ ও সাধারন সম্পাদক মফু বেপারী, ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী খোকন রাঢ়ী ও সাধারণ সম্পাদক নাছির গাজী, ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি খালেক শেখ ও সাধারণ সম্পাদক দেলু জমাদার, ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আনোয়ার হোসেন জমাদার ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর ফরাজি, ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মমতাজ গাজী ও সাধারন সম্পাদক রবিজল মাঝি, ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সেলিম শেখ ও সাধারন সম্পাদক বাসু হাওলাদার, ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বেলায়েত ও সাধারন সম্পাদক হান্নান মিজি, ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সেলিম খান ও সাধারন সম্পাদক হানিফ গাজী, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য সফিক বেপারী, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা দুলাল রাঢ়ীসহ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আরিফ হোসেন ও সদস্য সচিব সাইফুল ইসলাম, ইউনিয়ন পরিষদের সকল সদস্য, ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগসহ সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশে অংশগ্রহণ করে।
সমাবেশ শেষে হাজার হাজার নেতা-কর্মী শ্লোগানে বিক্ষোভ মিছিলটি বহরিয়া বাজার প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। এ সময় আগামী দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ ইউনুস শেখ ও সাধারণ সম্পাদক আরশাদ মিজি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *