নেতা সৎ বলেই আমাদের দেশ এগিয়ে যাচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী

শাহ আলম মিজি/মো: জাহাঙ্গীর আলম, হাইমচর

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, শিক্ষার্থীরা চাপা ক্ষোভের কারনে আত্মহনণের পথ বেছে নিচ্ছে। মেয়েরা অনেক সময়ই নানাভাবে ইফটিজিং এর শিকার হয়। সে সমস্যাটি যদি পরিবারের কাছে বলতে না পারে। তার শিক্ষকের কাছে বলতে না পারে। তখনই কিন্তু তার সেই চাপা আবেগের থাকে তার কারনে আত্মহনণের বহিঃ প্রকাশ ঘটে। কাজেই আমরা যেনো আমাদের সন্তানদের সাথে কথা বলি। তাদের সমস্যার অনুধাবনের চেষ্টা করি। এবং সেটা সংবেদনশীলতা নিয়ে করি। আমরা যেন গোরাতেই সন্তানদের কোন সমস্যা দেখলেই তাকে অভিযুক্ত না করি। তাকেই যেন না বলি এটা তোমার দোষে হয়েছে। আমাদের সন্তানদের বোঝাতে হবে। তাদের আবেগ নিয়ন্ত্রণ করা। আত্মহর্তার ঘটনা ঘটতে পারে।

তিনি আরো বলেন, শিক্ষাথীদের বয়ঃসন্ধিকাল এমন একটি সময় যখন অনেক ধরনে পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে যায়, যেমন শারীরীক মানুষিক। সব সময় সঠিক তথ্য তারা
পায় না। ঠিক মতো তাদের যে বুঝানো সেটা বাবা-মাও করেন না। স্কুলে যে পাঠ্য পুস্তকে যা আছে তাও তাদের ঠিক মতো জানানো হয় না।

গতকাল রবিবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে চাঁদপুরের হাইমচরে পোনামাছ অবমুক্তকরণ ও ২০২১-২২ অর্থবছরের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পুনর্বাসন সহায়তা বরাদ্দের উপজেলার
নদী ভাঙ্গন কবলিত ৫২৫ পরিবারের মাঝে নগদ চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশ নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন।

এর আগে প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপু মনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্ব সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ তৈরি করতে হবে। আমাদের নতুন প্রজন্মকে
সোনার মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা সরকার দায়িত্ব নেওয়ার পর দেশের উন্নয়ন হয়। তিনি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি দেশের মানুষের উন্নয়নের কথা ভাবেন এবং সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেন। তার সময়ে দেশের অর্থনীতি অনেক এগিয়েছে।

দীপু মনি বলেন, বিএনপির আমলের শেষ সময়ে সারাদেশের জন্য বরাদ্দ ছিল ৬০ হাজার কোটি টাকা। আর আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা এসে এখন শুধুমাত্র
শিক্ষাখাতে বরাদ্দ দেয় তার প্রায় দেড় গুণ বেশি। আজকে একেবারে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষও খেয়ে পড়ে চলতে পারে। একজন দিনমজুর যে পরিমাণ রোজগার করেন,
তা দিয়ে তিনি ভালো আছেন।
তিনি আরও বলেন, নেতা যদি সৎ না হন তাহলে দেশের উন্নয়ন এগিয়ে যায় না। নেতা সৎ বলেই আমাদের দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। অন্য সময়ে যারা দেশ পরিচালার
দায়িত্বে ছিলেন, তারা সততার সঙ্গে দেশ পরিচালনা করেননি। তারা এতিমের অর্থও আত্মসাৎ করেছেন।

দীপু মনি বলেন, মেঘনার ভাঙনে হাইমচরের চেহারা ভালো ছিল না। বাঁধ দেওয়ার কারণে এখন উপজেলার চেহারা পুরোপুরি পাল্টে গেছে। আর এটা সম্ভব হয়েছে জাতির
জনকের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী থাকার কারণে।

হাইমচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাই থোয়াইহল চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মাহবুব রশিদের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন হাইমচর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুর হোসেন পাটওয়ারী, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জাহিদুল ইসলাম রোমান, চাঁদপুরের সহকারী
পুলিশ সুপার মো. আসিফ, হাইমচর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. হুমায়ুন কবির প্রধানীয়া, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর
হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল, চাঁদপুর) আসিফ মহিউদ্দীন পিপিএম, হাইমচর উপজেলা চেয়ারম্যান নূর হোসন পাটোয়ারী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা
চাই থোয়াইহলা চৌধুরী, চাঁদপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র মোহম্মদ আলী মাঝি, উপজেলা আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হুমায়ন কবির প্রধানীয়া, ফরিদগঞ্জ
উপজেলা চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জাহিদুল ইসলাম রোমান, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর বেপারী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহানাজ বেগম, সদর
থানা অফিসার ইনর্চাজ আবদুর রশিদ, হাইমচর থানা অফিসার ইনর্চাজ মো: আশরাফুল ইসলামসহ বিভিন্ন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও সরকারি দপ্তর গুলোর র্কমর্কতাবৃন্দ
উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.