ফরিদগঞ্জে কোরআন শিক্ষার মক্তব বিলুপ্তির পথে

ইহকালে শান্তি আর পরকালের নাজাতের শিক্ষার প্রতিষ্ঠান কোরআন শিক্ষার মক্তবখানা কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে।ফরিদগঞ্জে আগের মতো এখন আর ছোট ছোট শিশুদের কোরআন শিক্ষার জন্য মক্তবে যেতে দেখা যায় না। গ্রাম অঞ্চলের মুসলিম পরিবারের শিশুশিক্ষার মূলভিত্তি ছিলো এই মক্তব শিক্ষা।

এখন আর আলিফ, বা ,তা , হামজা, হা, জের, জবর এর শব্দে মুখরিত হয়ে উঠে না পাড়া-মহল্লা। ইসলাম সম্পর্কে জ্ঞান অর্জনের উত্তম শিক্ষা কেন্দ্র হল এ কোরআনি মক্তব। তবে মুসলিম পরিবারে শিশুদের ধর্মীয় শিক্ষা কালিমা, নামাজ, রোজা, হজ, যাকাতসহ ধর্মীয় মাসয়ালা-মাসায়েল শেখার অন্যতম ব্যবস্থা ছিলো এটি। ইহকালে শান্তি ও পরকালের নাজাতের শিক্ষার শুরু এই মক্তব থেকেই। এ শিক্ষা ব্যবস্থা পরিচালনা করতেন স্থানীয় মসজিদের ইমাম বা মুয়াজ্জিনরা।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, উপজেলার ১৫টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রায় ১৪৪ ওয়ার্ডেই এক সময় মক্তব শিক্ষাব্যবস্থা চালু ছিল। একাধিক প্রবীণ ব্যক্তি জানান, মক্তব শিক্ষা বিলুপ্তির কারণে আমাদের দেশে শিশুশ্রম, বাল্যবিবাহ, কিশোর গ্যাংসহ বিভিন্ন অপরাধ প্রতিদিনই বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ দিকে শিশুরা ভবিষ্যতে ধর্মীয় জ্ঞান থেকে বঞ্চিত হয়ে পড়ছে।

ঐ সময় মক্তবে শিক্ষকদের মাসিক বেতন ছিল না, জনপ্রতি সাপ্তাহিক মুষ্ঠি চাল বেতন হিসেবে দেয়া হতো। কোনো কোনো মক্তবের শিক্ষকরা শুধু ছাত্রদের বাড়িতে খাবার খেয়ে (বেতন ছাড়া) জীবন-যাপন করতেন।

উপজেলার একাধিক ছাত্র অভিভাবক বলেন, সকালে ঘুম থেকে উঠে আমরা একসময় মক্তবে পড়ালেখা করেছি। এখন মক্তব শিক্ষাব্যবস্থা দিন দিন ঝিমিয়ে পড়ায় আমাদের সন্তানদের কোরআন শিক্ষাসহ ধর্মীয় রীতি-নীতির জ্ঞান অর্জন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। আর বর্তমানে অসচেতনতার কারণে অভিভাবকরা সন্তানদের মক্তবে না পাঠিয়ে বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষা অর্জনের জন্য কোচিংয়ে পাঠিয়ে দেন।

সানকি সাইর জামেয়া ইসলামিয়া মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা হাজী মো: দেলোয়ার হোসেন মল্লিক বলেন, উপজেলার প্রতি গ্রামে অন্তত একটি করে হলেও মক্তব থাকা প্রয়োজন। আগের মতো মক্তব না থাকায় এ উপজেলার ছেলে-মেয়েরা ধর্মীয় শিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

শিশুদেরকে ইসলামী বুনিয়াদি শিক্ষা দেওয়া না হলে, চিরতরে হারিয়ে যাবে অদূর ভবিষ্যৎ। এ জাতি না না অপকর্মে জড়িয়ে ধ্বংসের মুখে পতিত হবে। মক্তব শিক্ষাকে বিলুপ্তির পথ থেকে পুনরায় চালু রাখা সর্বমহলের নৈতিক দায়িত্ব।

ফরিদগঞ্জ প্রতিনিধি

Leave a Reply

Your email address will not be published.