সম্পত্তিগত বিরোধের জের ধরে কচুয়ায় বোন ও ভগ্নিপতিকে মারধরের অভিযোগ

কচুয়া সদর দক্ষিণ ইউনিয়নের হোসেনপুর গ্রামে সম্পত্তিগত বিরোধের জের ধরে সদর দক্ষিণ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ খন্দকার (৩৭) ও তার স্ত্রী ফারহানা আক্তারকে (৩১) মারধরের অভিযোগ উঠেছে।গতকাল মঙ্গলবার সকালে হোসেনপুর খন্দকার বাড়িতে এ হামলা ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত কচুয়া সদর দক্ষিণ ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ খন্দকারের স্ত্রী ফারহানা আক্তার মঙ্গলবার তার সৎ ভাই মাহফুজ (৪৭), তার স্ত্রী রানু বেগম (৩৫) ও মামা লিটনকে (৫৫) আসামী করে কচুয়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

বাদীর লিখিত অভিযোগ ও স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, হোসেনপুর খন্দকার বাড়ির মঞ্জুর আহমেদের ছেলে ইউনিয়ন যুব লীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ খন্দকার স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে করইশ জামাই পাড়ায় একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। ২৪ আগস্ট সকাল ৯টার দিকে তার সৎ ভাই তাদের অবর্তমানে তার দখলীয় জমির ফল গাছ থেকে বিভিন্ন ফল-ফলাদি ছিড়ে নিয়ে যায়। খবর পেয়ে নুর মোহাম্মদ খন্দকার ও তার স্ত্রী গ্রামের বাড়ি হোসেনপুরে গিয়ে তার ভাই ও ভাবিকে বাধা প্রদান করে। এক পর্যায়ে উভয়ে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এসময় তুমুল ঝগড়ার সৃষ্টি হলে মাহফুজ নুর মোহাম্মদের স্ত্রী ফারহানাকে মারধর শুরু করে। এবং মাহফুজের স্ত্রী রানু বেগম ফারহানাকে মারধর করে। এ সময়ে নুর মোহাম্মদ বাধা প্রদান করলে তাকেও বেধরক মারধর করা হয়। পরবর্তীতে বাড়ির অনান্য লোকজন এসে তাদের ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা করায় বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

নুর মোহাম্মদের সৎ ভাই মাহফুজের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তাকে পাওয়া যায়নি। হাসপাতালে গিয়ে খোঁজ করলেও তার সন্ধান মিলেনি। কচুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা যায়, সে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চলে যায়।

কচুয়া থানার ওসি মো.মহিউদ্দিন জানান, হোসেনপুর গ্রামে দুই ভাইয়ের মারামারির ঘটনায় দুপক্ষের লোকজনই আহত হয়েছে। একটি পক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি এবং অপর পক্ষ অভিযোগ করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। সরেজমিনে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

কচুয়া প্রতিনিধি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *