সামাজিক শৃঙ্খলার স্বার্থে দুর্বৃত্তায়ন থামাতে হবে

রাজনীতির দুর্বৃত্তায়ন প্রক্রিয়ায় ঘুষ-দুর্নীতি, টেন্ডারবাজি, দখলবাজি, মাদক ব্যবসা থেকে শুরু করে হেন কোনো অপকর্ম নেই যা হয় না। সবকিছুই ঘটে ক্ষমতা বলয়ে থাকার প্রভাব দেখিয়ে। দৃশ্যপট একই থাকে।

হিসাবের ভুল হলে শুধু পাত্রপাত্রী পাল্টে যায়। সম্প্রতি আটক হওয়া কয়েকজন দুর্বৃত্তের হিসাবে কোনো গণ্ডগোল হয়েছিল নিশ্চয়ই, তাই তাদের কুৎসিত রূপটি বেরিয়ে এসেছে।

অন্য কেউ যদি ভুল করে, তাদের পরিণতিও এমনই হবে। কিন্তু যাদের হাত ধরে পাপিয়া-সম্রাটদের উত্থান, পর্দার অন্তরালের সেই খলনায়কদের চেহারা অন্ধকারেই থেকে যায়।

রাঘববোয়ালরা আড়ালেই থাকবে। পাপিয়ারাও একসময় দৃশ্যের আড়ালে চলে যাবে। আবারও শূন্যস্থানে যথাসময়ে অন্য কোনো পাপিয়া আসবে। হিসাবের ভুলে তারও এমন পরিণতি হবে। কিন্তু গডফাদাররা জায়গামতো থেকেই যাবে।

পঞ্চাশ ও ষাটের দশকের রাজনীতি ছিল স্বাধিকার আন্দোলনের। সে সময় ছাত্র রাজনীতি দিয়ে যারা রাজনীতি শুরু করেছিলেন তাদের পড়াশোনায় গভীরতা ছিল।

প্রজ্ঞা-জ্ঞান-গরিমায় নিজেদের অনন্য উচ্চতায় নিয়েছিলেন তারা। সুস্থ ধারার রাজনীতির জন্য ব্যাপক পড়াশোনা, রাজনৈতিক গবেষণা জরুরি।
কিন্তু বর্তমানে ছোটখাটো বামপন্থী কিছু ছাত্রসংগঠন ছাড়া আর কেউই পড়াশোনাটাকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করে না।

তাদের কাছে পড়াশোনা ও সাংগঠনিক দক্ষতা যতটা না প্রাধান্য পায়, তার চেয়ে বেশি প্রাধান্য পায় প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার ক্ষমতা, আধিপত্য বিস্তার, পেশিশক্তি এবং অন্যান্য অপকর্মে দক্ষতা।

তাই জনগণের মঙ্গলের বিবেচনা দূরে থাক; আত্মসচেতনতা, আত্মোপলব্ধি, আত্মশুদ্ধির মতো বিষয়গুলোর চর্চা কেউ করে না। দুর্নীতি, কালো টাকা আর দুর্বৃত্তায়নের কাছে পরাজিত সৎ, একনিষ্ঠ, ত্যাগী মানুষেরা।

আস্তে আস্তে বিলীন হয়ে গেল রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানগুলো, একটি দেশের মানবিক ও সামাজিক বিকাশে যার গুরুত্ব অপরিসীম। সরকার দুর্নীতিবিরোধী অভিযান শুরু করে, মানুষ খুশি হয়।

কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পর অদৃশ্য কারণে সেই অভিযান থেমে যায়। আবার আস্থাহীনতা তৈরি হয়। এ এক আলো-আঁধারের খেলা, যে খেলায় শেষ পর্যন্ত আঁধারের কাছে আলো পরাজিত হয়।

দুর্নীতি, অন্যায়, অনাচার আর দুর্বৃত্তায়নের বিষবৃক্ষে ছেয়ে গেছে দেশ। এই বিষ রন্ধ্রে রন্ধ্রে ঢুকে ধ্বংস করছে দেশের রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানকে।

কাজী মোহাম্মদ ইব্রাহীম জুয়েল

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *