অভিনয়ে আগ্রহ ছিল না, সেই মেয়ের অভিনয় নিয়ে নেট দুনিয়ায় ঝড়

নব্বইয়ের দশকের শেষ দিকে রাম গোপাল ভার্মার হাত ধরে হিন্দি ছবিতে নতুন দিনের শুরু হয়। সেই যাত্রার সঙ্গী ছিলেন শেফালি শাহ। পরিচালকের ‘কাল্ট’ তকমা পাওয়া ‘সত্য’তে ছিলেন পার্শ্বচরিত্রে। ছিলেন রামুর আগের ছবি ‘রঙিলা’তেও। ঋতুপর্ণ ঘোষের ‘দ্য লাস্ট লিয়ার’-এ তিনি ছিলেন দুর্দান্ত। এর আগে ও পরে করেছেন ‘মনসুন ওয়েডিং’, ‘ফিফটিন পার্ক অ্যাভিনিউ’, ‘দিল ধড়াকনে দো’র মতো ছবি। তবে নেট দুনিয়ার দর্শক নতুনভাবে শেফালিকে আবিষ্কার করে ২০১৯ সালে, নেটফ্লিক্সের বহুল আলোচিত সিরিজ ‘দিল্লি ক্রাইম’-এ। চলতি মাসে তো বলা যায় ডাবল ধামাকা নিয়ে হাজির অভিনেত্রী। মাসের শুরুতে ওয়েব ছবি ‘ডার্লিংস’, শেষে ‘দিল্লি ক্রাইম’-এর দ্বিতীয় কিস্তি মুক্তির পর ভারতের অন্যতম আলোচিত অভিনেত্রী এখন শেফালি। ২৬ আগস্ট নেটফ্লিক্সে ‘দিল্লি ক্রাইম টু’ মুক্তির পর তো টুইটার মেতেছে শেফালি–বন্দনায়। অথচ ওয়েব সিরিজ তো দূর, অভিনয় নিয়েই কোনো আগ্রহ ছিল না শেফালির।

সে গল্প জানতে হলে পিছিয়ে যেতে হবে বছর পঞ্চাশেক, মুম্বাইয়ের রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া কলোনিতে। বাবা ছিলেন রিজার্ভ ব্যাংকের চাকুরে, মা হোমিওপ্যাথি চিকিৎসক। ছোটবেলা থেকে শেফালির আগ্রহ ছিল নাচে। মন দিয়ে ভরতনাট্যম শিখতেন, অভিনয়ে আগ্রহ ছিল না মোটেও। তবে ১০ বছর বয়সে ঘটনাচক্রে একটি গুজরাটি নাটকে অভিনয় তাঁর জীবনের গতিপথ বদলে দেয়। নাটকটি লিখেছিলেন তাঁর স্কুলশিক্ষক। পরে অবশ্য আর অভিনয়ে দেখা যায়নি। সেটা আবার শুরু করেন কলেজে ভর্তির পর। মিথিবাই কলেজে বিজ্ঞান নিয়ে পড়ার সময় নিয়মিত থিয়েটার করতে শুরু করেন।

শেফালিকে নিয়ে এত কথার হেতু ‘দিল্লি ক্রাইম টু’। অনেক সমালোচকের মতে, ভারত থেকে নির্মিত সেরা ট্রু-ক্রাইম সিরিজ এটি। প্রথমটির মতো এই কিস্তিতেও ডিসিপি ভার্তিকা চতুর্বেদী চরিত্রে অভিনয় করেছেন শেফালি। এবারের সিরিজটিও পুলিশের তদন্ত নিয়ে। শুরু হয় দিল্লির এক বাড়িতে বৃদ্ধ দম্পতির নৃশংস খুনের ঘটনা দিয়ে। ধীরে ধীরে বেরিয়ে আসতে থাকে পেছনের নানা সত্য। সিরিজটি মুক্তির পর ‘দিল্লি ক্রাইম টু’ ও শেফালির প্রশংসায় টুইটারে রীতিমতো ঝড় বয়ে গেছে। একজন লিখেছেন, ‘অভিনয়ের দিক থেকে এটাই সম্ভবত বছরের সেরা সিরিজ, যেখানে প্রত্যেক অভিনেতাই দুর্দান্ত।’

 অভিনয়ে-আগ্রহ-ছিল-না-সেই-মেয়ের-অভিনয়-নিয়ে-নেট-দুনিয়ায়-ঝড়

ডি নামের একজন লিখেছেন, ‘শেফালি শাহ, আপনি দুর্দান্ত। ইন্ডাস্ট্রির আর কেউই এই চরিত্র করতে পারতেন না।’ আশুতোষ চক্রবর্তী নামের আরেকজন লিখেছেন, ‘শেফালি শাহ আবারও দুর্দান্ত। বছরটা দুর্দান্ত যাচ্ছে আপনার।’ অনেকেই বলেছেন তৃতীয় সিজন আরও তাড়াতাড়ি নিয়ে আসার জন্য। কারণ, ২০১৯ সালে প্রথম কিস্তি মুক্তির পর দ্বিতীয় আসতে তিন বছর লেগে গেছে। নেটফ্লিক্স অবশ্য তৃতীয় সিজনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি। তবে সিরিজের শেষটা দেখে মনে হয়েছে, নিশ্চিতভাবেই পরের সিজন আসবে। তনুজ চোপড়া পরিচালিত সিরিজটিতে শেফালি শাহ ছাড়া আরও অভিনয় করেছেন রসিকা দুগাল, রাজেশ তাইলাং, তিলত্তমা সোম প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.