চাঁদপুরের ৮ উপজেলায় মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন

৫২তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে চাঁদপুরের ৮ উপজেলায় সরকার নির্ধারিত কর্মসূচি খুবই আনন্দঘন পরিবেশে উদযাপিত হয়েছে। এছাড়াও আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন দলীয় নির্ধারিত পৃথক কর্মসূচি পালন করে।

শনিবার (২৬ মার্চ) সূর্যোদয়ের সাথে সাথে পৃথক এসব কর্মসূচি পালন করেন কচুয়া, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ, চাঁদপুর সদর, হাইমচর, ফরিদগঞ্জ, হাজীগঞ্জ ও শাহরাস্তি উপজেলা প্রশাসন এবং উপজেলা পরিষদ।

কচুয়া উপজেলা: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে কচুয়া উপজেলায় সরকারিভাবে নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করে। ৩১বার তোপধ্বনীর মাধ্যমে দিবসের শুভ সূচনা হয়। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পর্যায়ক্রমে পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধ সংসদ ইউনিটসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। কুচকাওয়াজ ও শারিরীক কসরত প্রদর্শন করা হয়। দিবস উপলক্ষে কচুয়া উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কচুয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহজাহান শিশির, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মোতাছেম বিল্ল্যাহ, কচুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মহিউদ্দিন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিটের নেতৃবৃন্দ, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ। বাদ জোহর সকল মসজিদে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়।

মতলব উত্তর উপজেলা: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে মতলব উত্তর উপজেলায় সরকারিভাবে নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করে। ৩১বার তোপধ্বনীর মাধ্যমে দিবসের শুভ সূচনা হয়। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। পর্যায়ক্রমে পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধ সংসদ ইউনিটসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও পেশাজীবী সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। কুচকাওয়াজ ও শারিরীক কসরত প্রদর্শন করা হয়। দিবস উপলক্ষে মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরুল আমিন রুহুল এমপি। উপস্থিত ছিলেন মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এম.এ.কুদ্দুছ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গাজী শরীফুল হাসান, মতলব উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহজাহান কামাল, অন্যান্য জনপ্রতিনিধি, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ। বাদ জোহর সকল মসজিদে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া এবং মন্দীর ও গীর্জায় প্রার্থনা করা হয়।

মতলব দক্ষিণ উপজেলা: মতলব দক্ষিণ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালিত হয়েছে। সূর্য উদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের শুভ সুচনা হয়। এরপর পর নিউ হোস্টেল মাঠে দীপ্ত বাংলা পাদদেশে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। শুরুতেই পুষ্পস্তবক অর্পণ করছেন উপজেলা উদ্যাপন কমিটি। পরে উপজেলা পরিষদ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আওয়ামী লীগ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন।

সকাল ৮ টার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন এবং বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএইচএম কবির আহমেদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা হক, মতলব দক্ষিণ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহিউদ্দিন মিয়া।

পরে শান্তির পায়রা উড়িয়ে কুচকাওয়াজের শুভ উদ্বোধন করা হয়। এ সময় কুচকাওয়াজে অংশগ্রহণকারীদের সালাম গ্রহণ করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএইচএম কবির আহমেদ।

পরে মাঠ পরিদর্শন করেন অতিথিবৃন্দ। কুচকাওয়াজ শেষে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ডিসপ্লে অনুষ্ঠিত হয় এবং বিভিন্ন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। বিকেলে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী, মুজিববর্ষ, মহান বিজয় দিবস উদ্যাপন ও শপথ অনুষ্ঠান জাতীয় কর্মসূচির সাথে সমন্বত রেখে পালন করা হয়। সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়।

চাঁদপুর সদর : মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসন সরকারিভাবে নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করে। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে শহরের শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সড়কের অঙ্গীকার পাদদেশে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সানজিদা শাহনাজ, সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ হেলাল চৌধুরী, সদর উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান মো. আইয়ুব আলী বেপারী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা প্রমূখ।

এরপর জেলা প্রশাসন কর্তৃক সকল কর্মসূচিতে অংশগ্রহন করেন সদর উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ।

হাইমচর উপজেলা: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে হাইমচর উপজেলায় সরকারিভাবে নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করে। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনি। উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন পর্যায়ক্রমে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

এরপর দুর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। কুচকাওয়াজ ও শারিরীক কসরত প্রদর্শন করা হয়। দিবস উপলক্ষে হাইমচর উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এসব অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর হোসেন পাটওয়ারী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) চাই থোয়াইহলা চৌধুরী, হাইমচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহবুবুর রহমান মোল্লা, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিটের নেতৃবৃন্দ, অন্যান্য জনপ্রতিনিধি, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বাদ জোহর সকল মসজিদে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া এবং মন্দীর ও গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে ফরিদগঞ্জ উপজেলায় সরকারিভাবে নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করে। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনি। উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন পর্যায়ক্রমে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

এরপর ফরিদগঞ্জ এআর পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। কুচকাওয়াজ ও শারিরীক কসরত প্রদর্শন করা হয়। দিবস উপলক্ষে ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এসব অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জাহিদুল ইসলাম রোমান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিউলি হরি, ফরিদগঞ্জ পৌরসভার মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটওয়ারী, ফরিদগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শহীদ হোসেন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিটের নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বাদ জোহর সকল মসজিদে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া এবং মন্দীর ও গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

হাজীগঞ্জ উপজেলা: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে হাজীগঞ্জ উপজেলায় সরকারিভাবে নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করে। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনি। উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন পর্যায়ক্রমে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

এরপর হাজীগঞ্জ পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। কুচকাওয়াজ ও শারিরীক কসরত প্রদর্শন করা হয়। দিবস উপলক্ষে হাজীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এসব অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গাজী মো. মাইনুদ্দিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোমেনা আক্তার, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. মেহেদী হাসান মানিক, হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ জোবাইর সৈয়দ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিটের নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বাদ জোহর হাজীগঞ্জ ঐতিহাসিক জামে মসজিদসহ সকল মসজিদে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া এবং মন্দীর ও গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

শাহরাস্তি উপজেলা: মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে শাহরাস্তি উপজেলায় সরকারিভাবে নির্ধারিত কর্মসূচি পালন করে। উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনি। উপজেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। উপজেলা পরিষদ, উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিট, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন পর্যায়ক্রমে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

এরপর শাহরাস্তি উপজেলা পরিষদ মাঠে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। কুচকাওয়াজ ও শারিরীক কসরত প্রদর্শন করা হয়। দিবস উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ অডিটোরিয়ামে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পরিবারের সদস্যদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

এসব অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নাসরিন জাহান চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিরীন আক্তার, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ আমজাদ হোসেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নাহার, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবদুল মান্নান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ইউনিটের নেতৃবৃন্দ, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বাদ জোহর সকল মসজিদে শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে দোয়া এবং মন্দীর ও গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.