হাজীগঞ্জে ড্রেজারের পানিতে ফসল বিনষ্ট

হাজীগঞ্জ প্রতিনিধি ড্রেজারের ঘোলা পানিতে কৃষকের স্বপ্ন ডুবে গেলো। শেষ অবলম্বনটুকু টিকিয়ে রাখতে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। ড্রেজারের ঘোলা পানি জমে থাকাসহ কৃষি মাঠের পানি নিস্কাসনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকায় এমনটি হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্থরা জানিয়েছেন। ঘটনাটি হাজীগঞ্জের বাকিলা ইউনিয়নের সন্না খাঁন বাড়ির সামনে কৃষি মাঠে। স্থানীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ঐ মাঠে অন্য বছরগুলোর মতো চলিত শীত মৌসুমে আলু, পিয়াজ, রসুন, কুমড়া সরিষা, টমেটো, ইরি-রোর ধানের চাষ করেন উক্ত মাঠের জমির মালিকগনসহ কিছু বর্গা কৃষক। সব ফসলে ইতিমধ্যে ভালো ফলন এসেছে কিংবা ফলন আসার অপেক্ষায়।
গত কদিন পূর্বে উক্ত কৃষি মাঠের দক্ষিন পাশে খোকন দে বাড়ির মূল পুকুর ভরাট করা হচ্ছে ড্রেজার দিয়ে। সেই ড্রেজারের বালির সাথে আসা বালি মিশ্রিত পানি উপছিয়ে আশপাশের কৃষি জমিতে গিয়ে জমতে শুরু করে।
সেই জমে থাকা পানি কৃষি জমির ইরি-বোর বীজতলা, ইরি-বোর ধানের জমি, আলু, রসুন, সরিয়া, টমেটো ফসল নষ্ট হবার পথে রয়েছে। স্থানীয়দের সাথে কথা বলে আরো জানা যায়, উক্ত কৃষি জমির উত্তর পাশে তালুকদার বাড়ির সামনে পানি নিস্কাশনের যে কালভার্ড রয়েছে তা দিয়ে পানি চলাচলের পথ উন্মুক্ত করে দিলে উক্ত মাঠের পানি দ্রুত নিস্কাশন হবে। ড্রেজার পরিচালনাকারী নজরুল ইসলাম জানান, আমরা পুকুর ভরাটের জন্য অন্য একজনকে চুক্তি দিয়েছি। উনার ভূলে এই সমস্যা হয়েছে। কৃষকদের অভিযোগ জানার পর ড্রেজার এক মাসের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে।
উক্ত মাঠে জমি রয়েছে এমন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিক উল্যাহ খাঁন কাজল জানান, পানি নিস্কাসনের পথ না রেখে ড্রেজার চালানো ঠিক হয়নি। এতে করে আমাদের অনেক ক্ষতি হয়ে গেলো। উক্ত মাঠে বর্গা জমি চাষ করেন এমন একজন গিয়াস উদ্দিন হাওলাদার জানান,মাত্র কয়েকদিন হলো ইরি ধান রোপন করেছি এখন সেই জমি নষ্ট হবার পথে।
এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দিলরুবা খানম জানান, বিষয়টি আমি শুনে ঐ মাঠ পরিদশর্শন করে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদেরকে বলা হয়েছে তারা যেন ইউএনও স্যারের কাছে অভিযোগ দেয়। সম্ভবত আজ (বৃহস্পতিবার) কৃষকরা অভিযোগ দিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.