৫০ ব্যান্ড মিলে একটি গান

বাংলাদেশ মিউজিক্যাল ব্যান্ডস অ্যাসোসিয়েশনের (বামবা) সদস্য ৫০টি ব্যান্ড গাইল ১টি গান ‘প্রিয় বাংলাদেশ’। গানটি ইউটিউব ও ফেসবুকে প্রকাশিত হয়েছে। শাহান কবন্ধের লেখা ও নকীব খানের সুরে গানটির সংগীতায়োজন করেছেন মানাম আহমেদ। আয়োজক সূত্র জানিয়েছে, নারায়ণগঞ্জ স্টেডিয়ামে গানটির ভিডিও চিত্রে অংশ নেন ৫০ ব্যান্ডের ২ শতাধিক সদস্য। এর আগে দেশের এতগুলো ব্যান্ড একত্রে কোনো একটি গানে অংশ নেয়নি।

৫০-ব্যান্ড-মিলে-একটি-গান

বামবার সদস্য ও মাইলসের অন্যতম সদস্য হামিন আহমেদ বলেন, ‘বাংলাদেশ নয়, যত দূর জানি, পৃথিবীর ইতিহাসে এমন ঘটনা আগে ঘটেনি। ১০০ শিল্পী হয়তো একসঙ্গে গান গেয়েছে, কিন্তু ৫০টি ব্যান্ড একসঙ্গে গায়নি। এটা স্বাধীন বাংলাদেশের প্রতি আমাদের ভালোবাসা। আমরা এই ভিডিওর ফ্রেমে যারা আছি, তারা অনেকেই স্বাধীনতার ১০০ বছরে থাকব না। তখন এটা একটা স্মৃতি হয়ে থাকবে। আজম ভাই, লাকী আখন্দ, আইয়ুব বাচ্চুকে খুব মিস করেছি।’

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ঘিরে বড় আয়োজনে গানটির উদ্যোগ বামবার। গানটিতে যুক্ত ছিলেন মাকসুদ, সাইদ হাসান টিপু, নাসিম আলী, নকীব খান, বাপ্পা মজুমদার, হাসান, হামিন আহমেদ, পার্থ বড়ুয়া, মানাম আহমেদ, লাবু রহমান, লিংকন, শেখ মনিরুল আলম টিপু, বেস বাবা সুমন, রাফা, জোহাদসহ অনেকেই। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে গতকাল শনিবার গানটি ইউটিউব ও ফেসবুকে উন্মুক্ত করেছে টিএম রকস। এ গানের মধ্য দিয়েই যাত্রা শুরু হলো টিএম রকসের।

মানাম আহমেদ জানালেন, গানটি পুরোপুরি তৈরি হতে দুই মাসের বেশি সময় লেগেছে। কারণ, সব ব্যান্ডের সেরা সেরা মিউজিশিয়ানদের নিয়ে সংগীতায়োজনের কাজ করতে হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে আমরা ভিন্নধর্মী একটা পরিকল্পনা করতে চেয়েছি। তারই প্রয়াস এ গান। আমরা জানি, ব্যান্ড সব সময় সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি ও ভ্রাতৃত্বের কথা বলে। এ গানে ৫০টি ব্যান্ডকে যুক্ত করার মধ্য দিয়ে সেই বার্তাটাই দেওয়ার চেষ্টা করেছি। কাজটি খুবই চ্যালেঞ্জিং ছিল। আমার স্টুডিও ছাড়াও গানটির ট্র্যাক তৈরি করেছি ওয়ারফেজ ও বাপ্পা মজুমদারের স্টুডিওতে। সব মিলিয়ে এটা ছিল অসাধারণ এক অভিজ্ঞতা। আমি গর্বিত, এমন একটি গানের সংগীতায়োজনে নেতৃত্ব দিতে পেরে।’

নারায়ণগঞ্জের ওসমানী স্টেডিয়ামে গাজী শুভ্রর নির্দেশনায় তাঁর প্রতিষ্ঠান রেড ডটের সার্বিক তত্বাবধানে ‘প্রিয় বাংলাদেশ’ গানের ভিডিও চিত্র তৈরি হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.